পাতা:পাল ও বর্জিনিয়া.pdf/২৪০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পাল ও বর্জিনিয়া । ママ 。 অtশ্রয় ছাড়া হইল না । তাহদের সমাধির উপর কোন স্তম্ভ নিৰ্ম্মিত করিয়া তাহীতে তাহীদের অবিলমরণীয় গুণ উৎকীৰ্ত্তন করিতে হয় নাই । তাহাদের উপলক্ষে এ দ্বীপের অনেক স্থান স্তুতন নামে বিখ্যাত হইয়া আছে । দেখ অম্বর দ্বীপের নিকটে যে বাল কাময় তটভূমি আছে, তথায় সেন্টজিরান মারা পড়িয়াছিল বলিয়া তাহ ‘‘সেন্টজিরান” নামে বিখ্যাত হইয়াছে । এখান হুইতে সাড়ে চারি ক্রোশ পথ দূরে একখণ্ড দীর্ঘাকার ভূমিভাগ, যাহ। তুমিও পরে দেখিতে পাইবে, তাহার আধখান সমুদ্রজলে মগ্ন থাকে, তাহার শেষ সীমা “ অসৌভাগ্য অন্তরীপ’’ নামে খ্যাত হইয়াছে । কারণ, সেন্টজিরান ষে দিন সেখানে পহুছে সেই দিন সন্ধ্যাকাল হইতে আর তাহ কাহারো দৃষ্টিপথে পতিত হয় নাই । আমাদের সম্মুখে এই যে গুহার অগ্রভাগ দেখিতে পাও, ইহার নাম ‘সমাজখাড়ি’ কারণ বজিনিয়ার শব ঐ স্থানে বাল কায় ঢাকা দেখিতে পাওয়া গিয়াছিল’ । এই পর্য্যন্ত ইতিহাস কহিয়| সেই রদ্ধ মহাশয় । “আহা ! কোথায় গেলি রে বন্ধু সকল ! তোমরা কি অদ্ভূত প্রীতিপাশেই বদ্ধ থাকিয়া কালহরণ করিয়া গিয়াছ! আহা ! কোথ। গেলি রে মার গ্রেট ! কোথা রে বিবি দিলাতুর! জগদীশ্বরের ইচ্ছায় তোমরা এক একটি সন্তান পাইয়াছিলে বটে, কিন্তু তোমাদের মত দুর্ভাগ্যবতী আর আমি কোথাও দেখি নাই । আহা! এ সময়ে তোমরা একবার আসিয়া এস্থলের দুরবস্থা দেখিয়া 輸 పితి