পাতা:পাল ও বর্জিনিয়া.pdf/২৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


९ \\x }ল ও বর্জিনিয়া । থাকিবেক ন; । এবং অন্য কেহ আসিয়াও ইহ সহস{ অধিকার করিতে সমর্থ হইবেক না ’ । তামার মুখ হইতে এই কথা শ্রবণ করিয়া, তাহার। উভয়েই আমার নিকটে এই ভূমিখণ্ড বিভাগ করিয়৷ দিবার প্রার্থনা করিলেন; আমিও তদনুসারে ইহ। সমান অংশদ্বয়ে বিভক্ত করিয়া তাহাদের দুজনকে সমৰ্পণ করিলাম। ঐ সম্মুখঙ্গ পৰ্ব্বতের তালনদীর উৎপত্তি স্থান হইতে উহারি ঐ বিস্তারিত বিদার পর্য্যন্ত এক জনের অংশে পড়িল । উহার মধ্যে যে স্থান বনময় দেখা যাইতেছে, উহা অতিশয় দুর্গন । বিশেমতঃ ক্ষুদ্র ২ প্রস্তরখণ্ডে ব্যাপ্ত থাকিয়াও মধ্যে ২ নদীর স্থতি ও ঝরণায় পুর্ণ হইয়া ইহা সকলেরই অগম্য হইয়াছে । আর তাল নদীর তীর অবধি আমাদের এই উপবেশন স্থান পর্যন্ত যে ভূমিখণ্ড, তাহ অপর অংশের অন্তর্গত, তাল নদী এই স্তান বেষ্টন করিয়; সাগরের সহিত মিলিত হইয়াছে । এই রূপে আমি এই ভূমিখণ্ড সমান দুই ভাগে বিভাগ করিয়া, এ অংশ তুমি লও, এ অংশ ਦ੍ਰਿ লও, ইহা না বলিয়া, তাহাদিগকে কহিলাম “এখন এক কৰ্ম্ম কর, এই দুই অংশে তোমরা গুটিকাপাত * করিয়! আপন আপন স্বত্ব নির্দিষ্ট করিয়া লও ” । ইহাতে তাহারা মহা অামোদপূৰ্ব্বক সেইরূপ করিয়। লইল । এখানকার ঐ উচ্চ ভাগ বিবি দিলাতরের ংশে পড়িল । নিম্ন ভূমিখানা মার গ্রেটের হইল । গুটিকাপাতকে অপভাষায় সুরতিখেল বলে