পাতা:পাল ও বর্জিনিয়া.pdf/৪৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পাল ও বর্জিনিয়া । NS E তাহার। তাহার নামে জ্বলিয়া উঠিবেক তাহাতে কোন সন্দেহ নাই । সুতরাং তিনি সেই অপমানকে আর মুতন বলিয়াই ধৰ্ত্তব্য করিলেন না। বিশেষতঃ তিনি তখন সন্তানবাৎসল্যরসে এমনি নিমগ্না ও মত্তপ্রায়! হইয়াছিলেন যে র্তাহার তখন অপমানের উদ্বোধ হওয়াই দুর্ঘট । এই সকল কারণবশতঃ তিনি পত্রের কোন উত্তর পান নাই, বলিয়৷ কিছুমাত্র ক্ষুন্ন হইলেন না । যদি সে বুদ্ধ। এই উপলক্ষে তাহাকে আরো কতগুলা গালি তিরস্কার দিয়া লিখিয়া পাঠাইতেন তাহা হইলেও বোধ হয় তিনি তাহ অনায়াসে সহ করিতে পারিতেন, তাহাতে কোন সন্দেহ নাই । তিনি মনে ২ বুঝিয়াছিলেন আমার দুঃখে পিসীর দুঃখ হউক বা নাই হউক, অামার কন্যার উপরি র্তাহার অবশ্যই কিছু দয়া প্রকাশ হইবেক, তাহার ভূল নাই । মনে মনে এইরূপ ভ্রাস্তির পরবশ হইয়া তিনি আরো কয়েকবার তাহাকে পত্র লিখিয়াছিলেন, কিন্তু কে কার কথা শুনে ? তিনি একটি কথাও তাহার উত্তর পাই লেন ন} | তিন বৎসর পরে বিবি দিলাতুর শুনিতে পাইলেন যে ১১৩৮শ বঃ অব্দে ফেঞ্চদেশবাসি মনস্থ্যর দিলাবদন্ত্ৰই এই উপদ্বীপে গবর্ণর হইয়া আসিবার সময়ে, তাহার পিসী ভঁাহাকে দিয়া তাহার জন্য এক পত্র পাঠাইয়া দিয়াছেন । পত্ৰখানি”তদবধি তাহার কাছেই রহিয়াছে । এই কথা শুনিবা মাত্র তিনি বোধ করিলেন যে এতদিন যে আমি ধৈর্যা ধরিয়া রহিয়াছিলাম, বুঝি পরমেশ্বর তাহার ফল আমাকে প্রদান করিলেন ।