পাতা:পাল ও বর্জিনিয়া.pdf/৪৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


`డి'‘‘ পাল ও বর্জিনিয়া ।

  • শেক সম্বরণ করিয়া ভঁাহাকেই তাহ পাঠ করিয়া শুনাইতে হইল। মার গ্রেট পত্রের নিষ্ঠর মৰ্ম্ম শুনিয়া এককালে অবাক হইয়া রহিলেন । খানিক পরে সজল নধনে কহিতে লাগিলেন “সখি ! ভাল, আমাদের যেমন কপাল তেমনি প্লাকিলেইত ভাল হয় | আত্মীয় স্বজন বন্ধু বান্ধবের নিকট সাহায্য প্রার্থনায় আমাদের প্রয়োজন কি ? তুহারাই যেন আমাদিগকে পরিত্যাগ করিয়াছেন, যিনি বিশ্বম্ভর পরমেশ্বর, তিনিত আমাদিগকে বিস্মৃত হন নাই। আমাদের পিতা, মাতা, অভিভাবক প্রভৃতি সকলই তিনি, যখন যাহা জানাইতে হবে, তখন র্তাহ কেই জানাইলে ভাল হয়, তিনি অবশ্যই তাহার বিবেচনা করিবেন। উাহার অনুগ্রহুেতে আমরা এখন পর্য্যন্ত ও কোন ক্লেশ পাই নাই । ভবিষাতে কখন কি হইবে, সে জন্য তোমার অগ্রে এত ভাবনা চিন্তা এল ই ক্ষোভ করিবার আবশ্যক কি ? সৰিশেষ জানিয়াও তুমি এত অবোধের মত কাজ কয় কেন ? ।

এইরূপে মার গ্রেট র্তাহাকে বিস্তর বুঝাইতে লাগিলেন । কিন্তু মৰ্ম্মান্তিক বেদন বোধ হইয়াছিল বলিয়া, ক্ত হাতে র্তাহীর মন প্রবোধ মানিলেক না । অবিরত নয়ন-জলধারায় বক্ষঃস্থল ভাসিয়া মাইতে লাগিল । মার গ্রেটের মন মতি কোমল ছিল, অস্পেতেই আদ্র। হইত। তিনি অনেকক্ষণ পর্যন্ত বিবি দিলাতুরকে বুঝাইয় অবশেষে তাহার রোদন দেখিয়া অার বিনা রোদনে থাকিতে পারিলেন না । দেখিতে ২ উীহার নয়নদ্বয় অজ্ঞজলে পরিপূর্ণ হইয়া উঠিল ; এবং অস্তু