পাতা:পাল ও বর্জিনিয়া.pdf/৬১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


(ξ ο পাল ও বজিনিয়া । অবিলম্বেই গৃহে গমন করিয়া জননীদের মন হইতে শঙ্ক। দূর করিতে সমর্থ হইব ।” সমনস্তর তাহারা, চল তবে এখান হইতে প্রস্থান করা যাউক, এই কথা বলিয়া গাত্রোথান করিল । গাত্রোধান করিল বটে, কিন্তু তাহারা অবিলম্বে বিষম বিপজ্জালে জড়িত হইয়া পড়িল । তাহার। নিজে সেখানকার পথ ঘাট কিছুই চিনিত না, অথচ সে সকল পথ দেখাইয়া দেয় এমত কোন ব্যক্তিও তাহাদের সমভিব্যাহারে ছিল না ; সুতরাং এমত স্থলে বিপদ ঘটনা ন হইবার বিষয় কি? । যাহা হউক, ষে বিপদ উপস্থিত হইল, তাহা ভয়ানক বটে, কিন্তু পাল বড় সাহসিক ছিল, তাহার সাহস সহসা খৰ্ব্ব হইবার নহে । সে তখন সেই সাহসে নির্ভর করিয়া বর্জিনিয়াকে কহিতে লাগিল “ ভগিনি । ঐ দেখ, এখন আমাদের ঘরের উপরি রৌদ্র পতিত হইয়াছে । বেলা অবসান হইলেই আমাদের চালের উপরি রৌদ্রপাত হইয়। থাকে । এখন বোধ হইতেছে সন্ধ্যা হইতে আর বড় বিলম্ব নাই । অতএব এখন এক কৰ্ম্ম কর। কৰ্ত্তব্য, আইস আমরা প্রাতঃকালে যে ত্রিশিরা পৰ্ব্বতদিয়া আসিয়াছিলাম, এখন আবার সেই পৰ্ব্বতদিয়াই ফিরিয়৷ যাই ” । এই বলিয়। তাহারা দুই ভ্রাতৃ-ভগিনীতে তথা হইতে ফিরিয়া সেই পথদিয়া অভ্যাসিতে লাগিল। এবং সেই পৰ্ব্বতের উত্তর দিকের যে শৃঙ্গ হইতে ক্লষ্ণানদী বহির্গত হইয়াছে, সেই মোহানার নিকট আসিয়া उडोषी झ्हेण । अनख्ख डाशद्रा शृङ्कोर्डककोज खभग করিয়া ঐ মহানদীর কুলে আসিয়া উপস্থিত হইল ।