পাতা:পাল ও বর্জিনিয়া.pdf/৭৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পাল ও বর্জিনিয়া । やか○ মায়ের মুখ থেকে এ সকল ব্যাকুলতার কথা শুনিয়। বজিনিয়া অমনি তাহার গলাটি ধরিয়া মৃদু মধুরস্বরে কহিতে লাগিল “দেখ মা ! তোমরা ভজনা করিতে গেলে পর একটি কাফিষ্ট্ৰী আমাদের উঠানে আসিয়। বসিল, সে কৃষ্ণানদীর উপকুলবাসী এক ধনাঢ্য ক্লষকের দাসী । আহা ! তাহার দুঃখ দেখিয়া আমার বুক ফাটিয়া যাইতে লাগিল । তাহার না আছে পেটে ভাত, না আছে অঙ্গে বসন, আবার সর্বাঙ্গ প্রহারের চিহ্লে পরিপূর্ণ । মাসাবধি প্রায় বনেই ফিরিয়া অনাহারে কাল কাটাইয়াছে । সে অামাকে দেখিতে পাইব|মাত্র অামার পা দুখানি জড়িয়া ধরিয়া “মা আমাকে রক্ষা কর ” বলিয়া আপনার সমুদায় ব্লত্তান্ত অাদ্যোপাৰম্ভ কহিয়া শুনাইল । তাহাতে আমি আগে তাহাকে ভোজনাদি করাইয়া আপনার সঙ্গে লইয়া, দাদাতে অামাতে তাহার প্রভুকে অনুরোধ করিবার জন্য ক্লষ্ণনদীর তীরে সেই ক্লষকের কাছে গিয়াছিলাম। এখন আমরা সেখান হইতে আসিতেছি । পথে ঘোরতর বিপদসাগরে পড়িয়া ছিলাম, কেবল এই সদয় সেনাপতির অনুগ্ৰহেতেই তাহা হইতে উত্তীর্ণ হইলাম । উনি নহিলে আজি আমরা এ পর্য্যন্ত আসিতে পারি তাম না ’ । বর্জিনিয়ার মুখ হইতে এ সকল কথা শুনিয়! বিবি দিলাতুর এককালে অবাক হইয়া সাতিশয় স্নেহের সহিত তাহাকে কোলে করিয়া লইলেন এবং দেখিলেন যে বর্জিনিয়ার নয় ন হইতে অশ্রদ্ধার বহিয়া পড়িতেছে । ইহাতে তিনি তখন আপন বসনাঞ্চল দ্বারা তাহার মুখ চোখ মুছাইয়া দিয়া কহিলেন “বাছা! পর