পাতা:পাল ও বর্জিনিয়া.pdf/৮৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


3 পাল ও বর্জিনিয়া। সেই স্থানে গিয়া সেই শোভা নিরীক্ষণ করিতাম । এবং সমুদ্রের তীরে হংস, সারস, বক, চক্রবাক প্রভূতি জলবিহঙ্গম সকলের অপরূপ উড্ডীনগতি ও ক্রীডা দর্শনে চিত্ত বিনোদিত করি তাম । ৰঞ্জিনিয়া নিঝবের উপান্ত ভাগে বসিয়া থাকিতে নিতান্ত সস্তুষ্ট হুইত । বিশেষতঃ সেই নারিকেল ব্লক্ষের তলে চায়ায় বসিয়া আপনাদের ছাগ মেষাদি পশু সকল চরাইভে তাল বাসিত । যখন সেই সকল পশু ইতস্ততঃ নানাজাতীয় গুল্ম ও তৃণের মঞ্জরী সকল ভোজন করিত, তখন বর্জিনিযার আর আমোদের ঈয়ত্ত্বা থাকিত না । পাল উক্ত স্থান বর্জিনিয়ার নিরতিশয় বিনোদাস্পদ জানিতে পারিয়া, বন হইতে নানাবিধ পক্ষীর শাবক ও ডিম্ব শুদ্ধ কুলায সকল আনয়ন করিয়া, সেই স্থানের সন্নিতিত পৰ্ব্বতীয় নিদারের মধ্যে২ সাজাষ্ট্রয় রাখিত । পক্ষি-মাতারা প্ৰকতিসিদ্ধ স্নেহের পরবশ হইয়া পশ্চাৎ২ তথায় উপস্তিত হইতে বিলম্ব করিশুনা । অবিলম্বে সেই স্তলে আবার মৃতন বাস করিতে আরম্ভ করিত । বর্জিনিয়া প্রতিনিযত বৈকাল বেলায় যাইয় তাহাদিগকে ধান্য, মক্কা, চীন, মটর প্রভৃতি শস্য সকল ভাগ করিয়া চড়াইযা দিত। সে তথাষ উপস্থিত হইলে, শ্যামা প্রভৃতি যে সকল পক্ষী সীস দিতে পারি জ্ঞ তাহারা তথা হইতে কদাচ অপসরণ কবিত মা। মরকত মণির ন্যায় মুন্দর হরিদ্বর্ণ পরকুত পক্ষীরা সেই সময়ে চতুৰ্দ্দিকুস্তিত তাল খজুরাদি রক্ষ হইতে অবতরণ করিত। তিক্তিরি পক্ষী সকল সত্ত্বরে ঘাসের* উপরিদিয়া ধাবমান হইয়া অ|