পাতা:পৃথিবীর ইতিহাস - প্রথম খণ্ড (দুর্গাদাস লাহিড়ী).pdf/২৭৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


२७२ । । ভারতবর্ষ । । করিতেছ। কেম-ন, ধাৰ্ম্মিক হইয় প্রাণিগণের বধে কত অধৰ্ম্ম इश,#शङ्कं ' . . আমার মতে,-প্রাণিগণের বধ না করাই সৰ্ব্বাপেক্ষা শ্রেষ্ঠ । বরং মিথ্যা কথা কহিবে, তথাপি কোনপ্রকারে কাহারও হিংসা করিবে না । ধৰ্ম্মের স্বক্ষ-তত্ত্ব বুঝিষ্ট্ৰেচেষ্টা কর। SSBBBDDDBBB BBBBBBBB BBS BBBB B BBBB BB BBBB BBBS S S সত্যের কখনই সাধু ; সত্য হইতে আর কিছুই শ্রেষ্ঠ নাই ; পরস্তু সত্যই যাহার অনুষ্ঠানের বিষয় হয়, সত্যের যথার্থ-তত্ত্ব তাহার সুদুজ্ঞে য় হইয়া থাকে । যে স্থলে মিথ্যা সত্যস্বরূপ এবং সত্য মিথ্যাস্বরূপ হয়, সে স্থলে সত্য বক্তব্য ন হইয়া মিথ্যাই বক্তব্য হইবে প্রাণবিনাশে ও বিবাহে মিথ্যা বক্তব্য হুইবে ; এবং সৰ্ব্বশ্বের অপহরণেও মিথ্যা বক্তব্য হইতে পরিবে । বিবাহ-কালে, রতিক্রীড়া সময়ে, প্রাণবিনাশ-স্থলে, সৰ্ব্ব-ধনাপহরণে এবং ব্রাহ্মণের নিমিত্ত মিথ্যা কহিবে ; এই পঞ্চবিধ মিথ্যাকে পণ্ডিতের পাতক শূন্ত কহিয়াছেন। সেই সেই স্থলে । মিথ্যাও সত্য হইবে এবং সত্যও মিথ্যা-স্বরূপ হইবে । যে নিরবচ্ছিন্ন সত্যের অনুষ্ঠানে কৃত সঙ্কল্প হয়, সেই অনভিজ্ঞ ব্যক্তি কেবল সত্যকেই সত্য মনে করে । ফলতঃ, ধৰ্ম্মজ্ঞানী হওয়া সহজ নহে ; সত্য ও মিথ্যার স্বরূপ যথার্থ অবধারণ করিয়া, পরে ধৰ্ম্মজ্ঞ হও। BBBBB BBB BBB BBBBBBB BBBB SBBBB BBBB BB BBB BBB S সত্য-মিথ্যার মীমাংসা-সম্বন্ধে এইরূপ উপদেশ প্রদান করিয়া, শ্ৰীকৃষ্ণ দৃষ্টান্তস্থলে বলাক ব্যাধের এবং কৌশিক মুনির উপাখ্যান বর্ণন করেন । ঐ দুই উপাখ্যানে হিংস ও অহিংসার এবং সত্য ও মিথ্যার বিচার হইয়াছে । ‘ব্যাধ বলাক স্ত্রী-পুত্রাদি পরিবার প্রতিপালনের নিমিত্ত মৃগ-হনন করিত। স্বধৰ্ম্মে নিরত সত্যবাদী অস্থয়ী-শূন্ত হইয়া, বৃদ্ধ পিতা-মাতাকে এবং অন্যান্য আশ্রিত-জনগণকে প্রতিপালন করিবার জন্য মুগাকুসন্ধানে গমন করিয়া, এক দিন সেই ব্যাধ কোথাও মৃগের সন্ধান পাইল না। পরিশেষে দেখিল—একটা অন্ধ শ্বাপদ জল পান করিতেছে। সে যদিও তাদৃশ জীবকে পূৰ্ব্বে কখনও দেখে নাই ; তথাপি তাহাকে নিহত করিল। প্রাণী-হিংস হইলেও, হিংস্র জন্তু বধ BBBBB BBBS BB BBBSBBBBB BBB BBBB BBBBBS BBB DDSDDS লোক-হিতকর । সুতরাং এই উপাখ্যানের অবতারণায় শ্ৰীকৃষ্ণ বুঝাইলেন,--যুধিষ্ঠিরের অবধ-ৰূপ অহিংসাই যেমন ধৰ্ম্ম ; লোক-হিতাৰ্থে হিংস্র-জন্তুর প্রতি হিংসা ও সেইরূপ ধৰ্ম্ম । ফলে, মীমাংসাই ধৰ্ম্ম , ধৰ্ম্মাধৰ্ম্ম—হিংসা ও অহিংসা, দুই-ই মীমাংসার উপর নির্ভর করে । এইৰূপ, কৌশিকের গল্পে তিনি বলিতেছেন,—“কৌশিক নামে এক তপস্বী ব্রাহ্মণ ছিলেন । আমি সৰ্ব্বদা সত্য কথা কহিব’—ইহাই উহার প্রতিজ্ঞ ছিল । কিন্তু শাস্ত্রে উহার অধিক জ্ঞান ছিল না। এক দিন, দস্থ্যভয়ে ভীত হইয়া, কতিপয় লোক তাহার অরণ্যে প্রবেশ করে। দক্ষ্যগণ সেই লোকদিগের অনুসরণ করিয়া, কৌশিকের নিকট আসিয়া জিজ্ঞাসা করে,-"কয়েকটা লোক এই পথ দিয়া গিয়াছে কি ? যদি দেখিয়া থাকেন, সত্য কৰিয়া বলুন।", কৌশিক বুঝিলেন,~~দ্বক্ষ্যগণ সেই পলায়িত ব্যক্তিদের সদ্ধাম লইতেছে ; ভাহাদিগকে ধরিতে পারিলে, নিশ্চয়ই বিনষ্ট করবে। তথাপি সত্যBBBD DD uB BBBBSDDDgg BB BB BBBB BBBB BBBB BBBBS