পাতা:পৃথিবীর ইতিহাস - প্রথম খণ্ড (দুর্গাদাস লাহিড়ী).pdf/৪৮২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


sos ভারতবধ । আদিভূত। এই গভীর গণিত-তৰ আলোচনায় ভারতের মহিলার পর্য্যন্ত সময় সময় প্রতিষ্ঠ-লাত করিয়াছিলেন – তাহা স্মরণ করিলেও আশ্চৰ্য্যান্বিত হইতে হয়। পূৰ্ব্বে যে ‘লীলাবতীর নাম করিয়াছি, তাহ লীলাবতী নামী বিদুষী রমণীর অপূৰ্ব্ব বিদ্যাবভার BBB S BBBB BBB BSBBB BBBBBB BBS BB BBBB BBBBBS পিতার একমাত্র সস্তান । ভাস্করাচার্য্য সেই কন্যাকে পুত্রবৎ শিক্ষা দান করেন । কথিত DDSBBBBB SBBBSBBBBBS BBB BBBBBS BBBB BBBBS BBB লীলাবতী-বিরচিত । কেবল কি লীলাবতী ? গৰ্গ মুনির কন্যা গাগাঁ, যাজ্ঞবন্ধ্যের সহিত শাস্ত্রালোচনায় যশোভাজন হইয়াছিলেন । দেবভূতি, মদালসা, মৈত্রেরী, লোপামুদ্রা প্রভূতি বিদুষী রমণীগণের বিদ্যাবত্তার পরিচয়-পুরাণে, ইতিহাসে কতরূপে পরিকীৰ্ত্তিত ! স্বধৰ্ম্মপালনে, পরহিত ব্রতে, সংশিক্ষা-দানে হিন্দু-রমণীগণ আদর্শস্থানীয় ছিলেন । তাহাদের প্রাচীন কাহিনী আলোচনা করিলে আমরা দেখিতে পাই,-কেহ পতি-সেবার পরাকাষ্ঠা দেখাইতেছেন ; কেহ সস্তান-পালনের উচ্চ আদর্শ সম্মুখে ধরিয় রাখিয়াছেন ; কেহ তগবস্তুক্তিতে মাতোয়ার হইয়াছেন ; কেহ পাণ্ডিতোর পরাকাষ্ঠ প্রদর্শন করিতেছেন । ফলতঃ, স্ত্রী-জাতির প্রকৃত শিক্ষার ব্যবস্থায় প্রাচীন ভারতের প্রসিদ্ধি কখনও বিলুপ্ত। হইবার নহে। সে সম্পর্কেও স্পৰ্দ্ধ করিয়া বলিতে পারি,—ভারতবর্ষই আদিভূত, আদর্শস্থানীয়। অধিক বলিব কি, ভাষা-তত্ত্ব আলোচনায়ও অধুনা প্রতিপন্ন হইতেছে,—ভারতীয় আর্থ্যগণের ভাষাই—পৃথিবীর আদি ভাষা ; পৃথিবীর অন্যান্য ভাষার উৎপত্তির মূলে-- ভারতবর্ষের দেবভাষী । পৃথিবীর সকল ধৰ্ম্মেরই আদিভূত-ভারতীয় সনাতন ধৰ্ম্ম ; সকল ধৰ্ম্মই ভারতীয় সনাতন ধৰ্ম্ম হুইতে উৎপন্ন হইয়াছে । ফলতঃ, সকল বিষয়েই আমরা ভারতবর্ষকে শ্রেষ্ঠ ও আদি বলিয়। গৌরব অকুভব করি । কেনই বা গৌরব অনুভব না করিব ? স্বদেশের, স্বজাতির গৌরবময়ী পূৰ্ব্ব-স্থতি স্মরণ করিয়া কাহার না হৃদয় আনন্দে উৎফুল্ল হয় ? যাহাদের পিতৃ-পুরুষের পুণ্য স্মৃতি এমন উজ্জ্বল হইয়া আছে,—এমন দিকে দিকে উদ্ভাসিত রহিয়াছে, তাহারা উপসংহার। গৌরব অনুভব না করিবে কেন ? পিতৃ-পুরুষের পুণ্য-স্মৃতিতি গৌরব অনুভব না করিলে জাতির অধঃপতন আবশুম্ভাবী। বিশ্রেষতঃ, আমাদের পিতৃপুরুষগণের যে আদর্শ-চরিত্র চির দেদীপ্যমান, শিক্ষণীয় বিষয় তাহার অধিক আর কি থাকিতে পারে ? তাহাদিগের উদারতা, সরলতা, সততা, সত্য-প্রিয়ত, সাহসিকতা,— চিরপ্রসিদ্ধ। শিষ্ট-ব্যবহারে ও সদাচারে, দয়া ও পরোপকারে, তাহার চিরস্মরণীয়। এক কথায়, যে গুণে মর্ত্যের মানুষ দেবতার আসন লাভ করিতে পারে, আর্য্য-হিন্দুগণ সেই গুণেই গুণান্বিত ছিলেন। সত্য-পালনের স্তার ধৰ্ম্ম নাই ; সেই সত্য-পালনে আর্য্যগণ বে কৃষ্টান্ত রাখিয় গিয়াছেন,-কেহ কখনও তাহ বিশ্বত হইতে পারিবেন কি ? প্রাচীন ভারতের প্রাচীনতম ইতিহাসের প্রতিবৃষ্টিপাত না করিয়াও যদি আমরা অপেক্ষাকৃত আধুনিক ইতিবৃত্তের আলোচনা করি, তাহাতেও সে সম্বন্ধে বড় অন্ন প্রতিষ্ঠার পরিচয় পাই না। DDDDDB BBBBB BBB DDD BBBBD DDBBB BBBB BBB BBBBDS