পাতা:পৃথিবীর ইতিহাস - প্রথম খণ্ড (দুর্গাদাস লাহিড়ী).pdf/৭৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বৈদিক-প্রসঙ্গ। - | دوه ५ीराई ८ छमा-यांश्छखांब्र মিখ রা’ নামে পরিচিত । ইরাণের "আছরে মজ দু’-এই বরুণেরই ৷ অন্ত নাম । * আকাশের অবস্থা নিয়ত পরিবর্তন-শীল। সেই পরিবর্তন অনুসারেই বিবিধ নামে আকাশের পূজা-পদ্ধতি এ দেশে প্রচলিত ছিল । ইন্দ্রের পূজাও সেই আকাশ-পূজারই অন্তভুক্ত। সংসারে স্বরাষ্ট আনয়নের কর্তা ছিলেন বলিয়া, ইন্দ্র ক্রমশঃ হিন্দুগণের পূজায় প্রধান আসন লাভ করেন । সূৰ্য্য, সাবিত্ৰী, অদিতি, গায়ত্রী, পুষণ, বিষ্ণু প্রভৃতি আকাশ-সংক্রান্ত আরও নানা দেবতার কল্পনা বেদে দেখিতে পাওয়া যায়। বায়ু, মরুৎ, রুদ্র, যম, সোম—সে সকল দেবতার ইয়ত্ত আছে কি ? তবে দেবতার মধ্যে প্রধানতঃ তিন দেবতার সম্বন্ধে অধিক ঋক্ কৃষ্ট হয়। অগ্নি-দেবতার পরই ইন্দ্র-দেবতা এৰং তৎপরে সূৰ্য্য-দেবতার স্তোত্রের প্রাধান্ত ।” ফলতঃ, প্রকৃতির উপাসনা করিতে করিতে, আর্য্য-হিন্দুগণ ক্রমে ক্রমে প্রকৃতির স্বষ্টি-কৰ্ত্ত জগতের আদিভূত পরমেশ্বরের উপাসনায় প্রবৃত্ত হইতে সমর্থ হইয়াছিলেন, --বেদের আলোচনায়, পাশ্চাত্য-পণ্ডিতগণ eBBBB BB BBBB BBBB BBBDD S BB BBS BB BB BBBS BBB BBS BDD হইয়াছে, তিনিই তাহ বলিয়া গিয়াছেন ;--র্যাহার যাহা কল্পনায় উদয় হইয়াছে, তিনিই তাহা প্রকাশ করিয়াছেন। সে হিসাবে, আর্ষা-হিন্দুগণকে কেহ গাছ-পাথর-পূজক জড়োপাসক, কেহ বা অসভ্য বৰ্ব্বর বলিয়া কীৰ্ত্তন করিতেও ক্রাট করেন নাই। বেদের এখম এতই বিবৃত অবস্থা,--বেদের এখন এতই অর্থ-বিপর্যায়,—বেদের এখন এমনই কুর্দশার দিন উপস্থিত ! বেদের এই দুর্দশ হইবে বলিয়াই তো, ভবিষ্যদশী শাস্ত্রকারগণ বেদপাঠের অধিকারী অনধিকারী নির্দেশ করিয়া দিয়াছেন ! বেদের এইরূপ পরিণতি ঘটিবে আশঙ্কা করিয়াই তো, শাস্ত্রকারগণ ব্ৰহ্মচর্য্যাশ্রমে বেদ-পাঠের ব্যবস্থা বিহিত করিয়া গিয়াছেন । আমরা পূৰ্ব্বেই বলিয়াছি, বেদে সকল শাস্ত্রের সার মৰ্ম্ম নিহিত আছে ; সুতরাং শাস্ত্ৰ-মৰ্ম্মানুসারে বেদ-মৰ্ম্ম বুঝিতে হইলে, বহু সাধনার, বহু অধ্যবসায়ের প্রয়োজন। কিন্তু সেরূপভাবে শাস্ত্র-সমুদ্র মন্থন করিয়া বেদ-পাঠের ক্ষমতা এখন আর কাহার অাছে ? তাই, বেদ লইয়া এখন নানা জনে নানা কথাই কহিতে পারিতেছেন । তাই, লোকের সুবিধাঅসুবিধা-অনুসারে, বেদের এখন নানা অর্থ স্থচিত হইতেছে ! কিরূপ চিত্ত-স্থির করিয়৷ শুদ্ধ-শাস্ত হইয়া বেদ পাঠ করিলে অভীষ্ট-লাভ হয়, মমু-সংহিতার চতুর্থ অধ্যায়ে তাহ। বিশদ-রূপে বর্ণিত আছে। কোন বেদের কি প্রতিপাদ্য বিষয়, মসু সক্ষেপে তাহাও উল্লেখ করিতে ক্ৰটি করেন নাই । তিনি বলিয়া গিয়াছেন,—“ঋগ্বেদে দেব-দৈবত্ব অর্থাৎ দেবতার স্তুতিই প্রধানভাবে বিদ্যমান আছে । মঞ্জস্যগণ যজুৰ্ব্বেদের দেবতা, অর্থাৎ মকুন্তগণের কৰ্ম্মকাণ্ডই যজুৰ্ব্বেদের মুখ্য বিষয়। সামবেদ পিতৃ-দেবতাক অর্থাৎ পিতৃ-লোকের মাহাত্ম্য-কীৰ্ত্তন—সামবেদের মুখ্য উদেণ্ড । বিম্বানগণ, তিন বেদের এইরূপ তিন অধিষ্ঠাত জানিয়া, সকল বেদের সারভূত প্রণব, ব্যাহতি ও গায়ন্ত্ৰী পূৰ্ব্বে উচ্চারণ করিয়া পশ্চাৎ বেদাধ্যয়ন করিবেন।” . . - • *m-stay "few-to wo—“Dyu to:) is the Zeus of the Greeks, zis of the Germans, to of the Saxons, Jupiter of the Romans; Varuna (www.) is the Uranus of the Greeks: and Mitra (fou) is the Mithra of the Zend-avcsta, and Ahura Mazd of the Irans, &c.” -