পাতা:প্রকৃতির প্রতিশোধ - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্রকৃতির প্রতিশোধ জগৎ চরণতলে গিয়াছে মিলায়ে— সহসা প্রকাশ পাই দীপ্ত মহিমায় । বসে বসে চন্দ্র সূর্য দিয়েছি নিবায়ে, একে একে ভাঙিয়াছি বিশ্বের সীমানা, দৃশ্য শব্দ স্বাদ গন্ধ গিয়েছে ছুটিয়া, গেছে ভেঙে আশা ভয় মায়ার কুহক। কোটি-কোটি-যুগ-ব্যাপী সাধনার পরে, যুগান্তের অবসানে, প্রলয়সলিলে স্থষ্টির মলিন রেখা মুছি শূন্য হতে— ছায়াহীন নিষ্কলঙ্ক অনন্ত পুরিয়া যে আনন্দে মহাদেব করেন বিরাজ পেয়েছি পেয়েছি সেই আনন্দ-আভাস । জগতের মহাশিলা বক্ষে চাপাইয়া কে আমারে কারাগারে করেছিল রোধ ! পলে পলে যুঝি যুঝি তিল তিল করি জগদল সে পাষাণ ফেলেছি সরায়ে, হৃদয় হয়েছে লঘু স্বাধীন স্ববশ । কী কষ্ট না দিয়েছিস রাক্ষসী প্রকৃতি অসহায় ছিনু যবে তোর মায়াফাদে ! আমার হৃদয়রাজ্যে করিয়া প্রবেশ আমারি হৃদয় তুই করিলি বিদ্রোহী । বিরাম বিশ্রাম নাই দিবসরজনী সংগ্রাম বহিয়া বক্ষে বেড়াতেম ভ্ৰমি । কানেতে বাজিত সদা প্রাণের বিলাপ, হৃদয়ের রক্তপাতে বিশ্ব রক্তময়, রাঙা হয়ে উঠেছিল দিবসের আঁখি । ॐ (? S) 0 Vう@ 8 ()