পাতা:প্রকৃতির প্রতিশোধ - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


* o প্রকৃত্তির প্রতিশোধ বনফুলে গাথব মালা, পরিয়ে দিব খ্যামের গলে। বালক পুত্ৰ -সমেত স্ত্রীলোকের প্রবেশ ব্রাহ্মণ পথিকের প্রতি স্ত্রীলোক। হ্যাগ দাদাঠাকুর, এত ব্যস্ত হয়ে কমনে চলেছ ? ব্রাহ্মণ । আজ শিষ্যবাড়ি চলেছি নাতনি। অনেকগুলি ঘর আজকের মধ্যে সেরে আসতে হবে, তাই সকাল সকাল বেরিয়েছি । তুমি কোথায় যাচ্ছ গা ? স্ত্রীলোক। আমি ঠাকুরের পুজো দিতে যাব। ঘরকন্নার কাজ ফেলে এসেছি, মিনসে আবার রাগ করবে। পথে হ্ল দণ্ড দাড়িয়ে যে জিগ্‌গেসপড়া করব তার জো নেই। বলি, দাদাঠাকুর, আমাদের ও দিকে যে একবার পায়ের ধুলো পড়ে না! ব্রাহ্মণ । আর ভাই, বুড়োহুড়ো হয়ে পড়েছি, তোদের এখন নবীন বয়েস, কী জানি পছন্দ না হয়। যার দাত পড়ে গেছে, তার চাল-কড়াই-ভাজার দোকানে না যাওয়াই ভালো । স্ত্রীলোক। নাও, নাও, রঙ্গ রেখে দাও । আর-এক স্ত্রীলোক। এই-যে ঠাকুর, আজকাল তুমি যে বড়ে মাগগি হয়েছ। ব্রাহ্মণ। মাগগি আর হলেম কই । সকালবেলায় পথের মধ্যে তোরা পাচ জনে মিলে আমাকে টানাছেড়া আরম্ভ করেছিস । তবু তো আমার সেকাল নেই। প্রথম । আমি যাই ভাই, ঘরের সমস্ত কাজ পড়ে রয়েছে। দ্বিতীয়া । তা এস । পুনর্বার ফিরিয়া প্রথমা। হ্যালা অলঙ্গ, তোদের পাড়ায় সেই-যে কথাটা (? O & 6. V5 O. やう(?