পাতা:প্রকৃতির প্রতিশোধ - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


૨ 8 প্রকৃতির প্রতিশোধ পড়িছে জ্ঞানের চোখে মেঘ-আবরণ। ধীরে ধীরে মোহময় মরণের ছায়া কেন রে আমারে যেন আচ্ছন্ন করিছে ! সহসা ফুল ফল ছুড়িয়া ফেলিয়া ভূমিতে পদাঘাত করিয়া দূর হোক— এ-সকল কিছু ভালো নয়— বালিকা, বালিকা, তোর এ কী ছেলেখেলা ! আমি যে সন্ন্যাসী যোগী মুক্ত নির্বিকার, সংসারের গ্রন্থি-হীন, স্বাধীন সবল, এ ধুলায় ঢাকিবি কি আমার নয়ন । কিয়ৎক্ষণ থামিয়া বাছা রে, অমন করে চাহিয়া কেন রে! কেন রে নয়ন ফুটি করে ছল ছল ! জানিস নে তুই মোরা সন্ন্যাসী বিরাগী, আমাদের এ-সকল ভালো নাহি লাগে । ছিছি, জনমিল প্রাণে একি এ বিকার ! সহসা কেন রে এত করিল চঞ্চল ! কোথা লুকাইয়া ছিল হৃদয়ের মাঝে ক্ষুদ্র রোষ, অগ্লিজিহব নরকের কাঁট! কোন অন্ধকার হতে উঠিল ফুষিয়া ! এতদিন অনাহারে এখনো মরে নি । হৃদয়ে লুকানো আছে এ কী বিভীষিকা ! কোথা যে কে আছে গুপ্ত কিছু তো জানি নে ! হৃদয়ৰ্ম্মশান-মাঝে মৃতপ্রাণী যত প্রাণ পেয়ে নাচিতেছে কঙ্কালের নাচ, কেমনে নিশ্চিন্ত হয়ে রহি আমি আর । ९ ® \) 0 \O & 8 0