পাতা:প্রকৃতির প্রতিশোধ - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সপ্তম দৃপ্ত দীপ জ্বলে উঠিতেছে তু একটি ক’রে— সন্ধ্যার আরতি হয়, শঙ্খ ঘণ্টা বাজে। প্রকৃতি, এমন তোরে দেখি নি কখনো— এমন মধুর যদি মায়ামূর্তি তোর, দূর হতে বসে বসে দেখি-না চাহিয়া ! হেথায় বসি-না কেন রাজার মতন, জগতের রঙ্গভূমি সম্মুখে আমার ! আমি আজি প্রভু তোর, তুই দাসী মোর, মায়াবিনী দেখা তোর মায়া-অভিনয় । দেখা তোর জগতের মহা ইন্দ্রজাল । খেলা কর সমুখেতে চন্দ্র সূর্য নিয়ে, নীলাকাশ রাজছত্র ধর মোর শিরে, সমস্ত জগৎ দিয়ে কর মোরে পূজা । উঠক রে দিবানিশি সপ্তলোক হতে বিচিত্র রাগিণীময়ী মায়াময়ী গাথা । আর-একদল পথিকের প্রবেশ গান মরি লো মরি, আমায় বাশিতে ডেকেছে কে ! ভেবেছিলেম ঘরে রব, কোথাও যাব না— বাহিরে বাজিল বাশি ! বলে কী করি । শুনেছি কোন কুঞ্জবনে যমুনাতীরে সাঝের বেলা বাজে বাশি ধীর সমীরে— ওগো, তোরা জানিস যদি আমায় পথ বলে দে । २-*ी ९ (* ○ {} ○ (? 8 Ꭴ,