পাতা:প্রকৃতির প্রতিশোধ - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সন্ন্যাসী । বালিকা । সন্ন্যাসী । একাদশ দৃপ্ত \○○ সহসা চমকিয়া উঠিয়া কে রে তুই ? কে রে বাছা ? কোথা হতে এলি ? অনাথিনী ? তুইও কি তারি মতো তবে ? তোরেও কি ফেলে কেউ গিয়েছে পলায়ে ? তারেই কি চারি দিকে খুঁজিয়া বেড়াস? বৎসে, কাছে আয় তুই– দে রে পরিচয় । ३ (? ভিখারি বালিকা আমি, সন্ন্যাসী ঠাকুর, অন্ধ বৃদ্ধ মাতা মোর রোগশয্যাশায়ী। আসিয়াছি এক-মুঠ ভিক্ষান্নের তরে। আহা বৎসে, নিয়ে চল কুটিরেতে তোর । রুগণ তোর জননীরে দেখে আসি আমি । Ny 0. [ প্রস্থান কতকগুলি সস্তান লইয়া একজন স্ত্রীলোকের প্রবেশ স্ত্রী। দেখ দেখি, মিশ্রদের বাড়ির ছেলেগুলি কেমন রিষ্টপুষ্ট ! দেখলে দু-দণ্ড চেয়ে থাকতে ইচ্ছে করে— আর এঁদের ছিরি দেখোনা, যেন বৃষকাষ্ঠ দাড়িয়ে আছেন, যেন সাত কুলে কেউ নেই, যেন সাত জন্মে খেতে পান না । সন্তানগণ । তা আমরা কী করব মা ! আমাদের দোষ কী ? ৩৫ মা ! বললেম— বলি, রোজ সকালে ভালো করে হলুদ মেখে তেল মেখে স্তান কর, ধাত পোষ্টাই হবে, ছিরি ফিরবে— তা তো কেউ শুনবে না! আহা, ওদের দিকে চাইলে চোখ জুড়িয়ে যায়, রঙ যেন দুধে আলতায়— সন্তানগণ। আমাদের রঙ কালো তা আমরা কী করব ? 8 0 মা ! তোদের রঙ কালো কে বললে ? তোদের রঙ মন্দ কী ? তবে কেন ওদের মতো দেখায় না ? [ প্রস্থান