পাতা:প্রকৃতির প্রতিশোধ - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৬৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সন্ন্যাসী । 8 ግ প্রভাত অরণ্য হইতে ছুটিয়া বাহিরে আসিয়া যাক, রসাতলে যাক সন্ন্যাসীর ব্রত ! ছুড়িয়া ফেলিয়া দূর করে, ভেঙে ফেলো দণ্ড কমণ্ডলু ! আজ হতে আমি আর নহি রে সন্ন্যাসী ! পাষাণসংকল্লভার দিয়ে বিসর্জন আনন্দে নিশ্বাস ফেলে বাচি একবার । (* হে বিশ্ব, হে মহাতরী, চলেছ কোথায়, আমারে তুলিয়া লও তোমার আশ্রয়ে— একা অামি সাতারিয়া পারিব না যেতে । কোটি কোটি যাত্রী ওই যেতেছে চলিয়া, আমিও চলিতে চাই উহাদেরি সাথে । > 0 যে পথে তপন শশী আলো ধ’রে আছে সে পথ করিয়া তুচ্ছ, সে আলো ত্যজিয়া, আপনারি ক্ষুদ্র এই খদ্যোত-আলোকে কেন অন্ধকারে মরি পথ খুঁজে খুঁজে ! জগৎ, তোমারে ছেড়ে পারি নে যে যেতে, > * মহা অাকর্ষণে সবে বাধা আছি মোরা । পাখি যবে উড়ে যায় আকাশের পানে মনে করে এনু বুঝি পৃথিবী ত্যজিয়া’— যত ওড়ে— যত ওড়ে— যত উর্ধের্ব যায়—