পাতা:প্রবন্ধ পুস্তক-বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/৪৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


S)ჯ) ংখ্যদর্শন । cरुभिं झग्न । दिरु यमानि श्लूिमशांखिद्र झमग्नशtशा हैशंद्र নাম ੇ বিরাজ করিতেছে। যিনি হিন্দুদিগের পুরাবৃত্ত অধ্যয়ন করিতে চাহেন, সাংখ্যদর্শন না বুঝিলে উহার সমাক্‌ জ্ঞান জন্মিবে না ; কেন না হিন্দুসমাজের পূৰ্ব্বকালীন গতি অনেক দূর সংখ্যপ্রদর্শিত পথে হইয়াছিল। যিনি বর্তমান হিন্দুসমাজের চরিত্র বুঝিতে চাহেন, তিনি সাংখা অধ্যয়ন করুন। সেই চরিত্রের মূল সাংখ্যে অনেক দেখিতে পাইবেন। সংসার যে দুঃখময়, দুঃখ নিবারণমাত্র আমাদিগের পুরুষাৰ্থ, এ কথা যেমন হিন্দুজাতির হাড়ে হাড়ে প্রবেশ করিয়াছে, এমন, বোধ হয়, পৃথিবীর আর কোন জাতির মধ্যে হয় নাই। তাহার বীজ সংখ্যদর্শনে । তন্নিবন্ধন, ভারতবর্ষে যে পরিমাণে বৈরাগ্য বহুকাল হইতে প্রবল, তেমন আর কোন দেশেই নহে। সেই বৈরাগ্যপ্রাবনের ফল বর্তমান হিন্দুচরিত্র। যে কাৰ্য্যুপরতন্ত্র তার অভাব আমাদিগের প্রধান লক্ষণ বলিয়া বিদেশীয়ের নির্দেশ করেন, তাহ সেই বৈরাগ্যের সাধারণত মাত্র। যে অদৃষ্টবাদিত্ব আমাদিগের দ্বিতীয় প্রধান লক্ষণ, তাহ সাংখ্যজাত বৈরাগ্যের ভিন্নমূৰ্ত্তি মাত্র। এই বৈরাগ্যসাধারণত এবং অদৃষ্টবাদিত্বের কৃপাতেই ভারতবর্ষীয়দিগের অসীম বাহুবল সত্ত্বেও আর্যভূমি মুসলমানপদানত হইয়াছিল। সেই জন্য অদ্যাপি ভারতবর্ষ পরাধীন। সেই জন্যই বহুকাল হইতে এ দেশে সমাজোন্নতি মন্দ হইয়া, শেবে অবরুদ্ধ হইয়াছিল। জোবার সাংখ্যের প্রকৃতি পুরুষ লইয়া তন্ত্রের স্বষ্টি। সেই তান্ত্রিককাণ্ডে দেশ ব্যাপ্ত হইয়াছে। সেই তন্ত্রের কৃপায় বিক্রমপুরে বসিয়া নিষ্ঠ ব্ৰাহ্মণ ঠাকুর অপরিমিত মষির উদয়স্থ করিয়া, ধৰ্ম্মাচরণ করিলাম বলিয়া, পরম পরিতোব লাভ করিতেছেন। সেই তন্ত্রের প্রভাবে, প্রায় শত যোজন দূরে, ভারতবর্ষের