পাতা:প্রবন্ধ পুস্তক-বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/৭২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সাংখ্যদর্শন। やS) বিষ্ণু মন হইতে স্বজন করিয়াছিলেন। শান্তিপর্কে সরস্বতীকে বেদমতে বলা হইয়াছে। (১৮) অথৰ্ব্ব বেদান্তর্গত আযুৰ্ব্বেদে আছে, যে আয়ুৰ্ব্বেদ ব্ৰহ্মা মনে মনে জানিয়াছিলেন। আয়ুৰ্ব্বেদ অথৰ্ব্ববেদান্তর্গত বলিয়া অথৰ্ব্ববেদের ঐন্ধপ উৎপত্তি বুঝিতে হইবে। বেদের মন্ত্র,ব্রাহ্মণ,উপনিষদ এবং আরণ্যকে,এবং স্মৃতি,পুরাণ, ও ইতিহাসে বেদোৎপত্তি বিষয়ে এইরূপ আছে। দেখা যাইতেছে যে এ সকলে বেদেয় ইষ্টত্ব এবং পৌরষেয়ত্ব প্রায় সৰ্ব্বত্র স্বীকৃত হইয়াছে—কদাচিৎ অপৌরুষেয়ত্বও কথিত হইয়াছে। কিন্তু পরবর্তী টীকাকার ও দার্শনিকের প্রার অপৌরুষেয়ত্ব বাদী। তাহাদিগের মত নিয়ে লিখিত হইতেছে । (১৯) সায়নাচাৰ্য্য বেদার্থপ্রকাশ নামে ঋগ্বেদের টীকা করিয়াছেন। তাহাতে তিনি বলেন যে বেদ অপেীয়ষেয়। কিন্তু বেদ মনুষ্যকৃত নহে বলিয়াই অপৌরুষেয় বলেন। (২) সায়নাচার্য্যের ভ্রাতা মাধবাচার্যাও লেদার্থ প্রকাশ নামে তৈত্তিরীয় যজুৰ্ব্বেদের টীকা করিয়াছেন। তিনি বলেন বেদ নিত্য । তযে তিনি এই অর্থে নিত্য বলেন, যে কাল আকশান্ধি যেমন নিত্য সেইরূপ বেদ । ব্যবহার কালে কালিদাসা দিবাকাবৎ পুরুষবিরচিত নহে বলিয়। নিত্য । এবং তিনি ব্ৰহ্মাকে বেদবক্তা বলিরা স্বীকার করিয়াছেন । (২১) মীমাংসকেয়া বলেন যেদ নিস্তা এবং অপৌরুষেয় । শঙ্ক নিত্য বলিয়। বেদ নিত্য। শঙ্করাচাৰ্য্য এই মতাবলম্বী। (২২) নৈরায়িকের তাহার প্রতিবাদ করির বলেন, বেদ পৌরুষেয় –মন্ত্র ও আযুৰ্ব্বেদের ন্যায়, জ্ঞানী ব্যক্তির কথা প্রাৰাণ্য বলিয়াই বেঙ্গও প্রামাণ্য বোধ হয়। গৌতমস্থত্রের