প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:প্রহাসিনী-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/১৩১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্ৰহাসিনী ২ ও ৩ ॥ ১৩৪১ মাঘের বিচিত্রায় ‘নারীপ্রগতি প্রচারিত হইলে ‘অপরাজিত৷ দেবী অনুরূপ ছন্দে একটি উত্তর লিখিয়া পাঠান। সেই কবিতা ও তাহার প্রত্যুত্তরে রবীন্দ্রনাথ-রচিত ‘আধুনিক একত্র ছাপা হয় ১৩৪১ চৈত্রের প্রবাসী পত্রে, পৃ. ৮২৯-৩৪ । ৩ । এই রচনার পূর্বস্বত্র ও দীর্ঘতর পূর্বপাঠ আবিষ্কার করা যায় নির্মলকুমারী মহলানবিশকে লেখা রবীন্দ্রনাথের পত্রে । দ্রষ্টব্য দেশ পত্রের ১৩৬৮ সনের ২৩ ভাদ্র ও ১৩ আশ্বিন সংখ্যায় ‘পত্রাবলী’-ধৃত পত্র ২৪৫ ও ২৬৬ | শেষোক্ত ক্ষেত্রে আলোচ্য কবিতার প্রথম স্তবকের শেষে গ্রন্থে-বর্জিত এই কয়টি ছত্র পাওয়া যায় ৩— বোলপুর-পুরী-পথ সেজন্য চিরদিনতরে হয়েছে ধন্ত । একদা শুনেছি অধ" নিশীথে সুদূর তারার আলোয় মিশিতে নারীর কণ্ঠ ঝড়ের রাত্রে, রোমাঞ্চ তারি লেগেছে গাত্রে । স্বরশররাজি বক্ষে বিধায়ে দসু্যদানবে ফেলেছ কী দায়ে । চরণের বেগে সেই নারী যে রে লাজ দিল আজ কল-দানবেরে ॥ উল্লিখিত অংশে যে যে ঘটনার ইঙ্গিত করা হইয়াছে, তাহা ব্যাখ্যাত হয় পত্রাবলীর এই পত্রে (সংখ্যা ২৬৬ পৃ. ৭৮৬) ও পূর্বোক্ত পত্রে (সংখ্যা ২৪৫ পৃ. ৫৭৬) নির্মলকুমারী-লিখিত পাদটীকায় । ৪ । রবীন্দ্রনাথ “লোকসাহিত্য গ্রন্থের ছেলেভুলানো ছড়া প্রবন্ধে (১৩৭১) তকবির হাতের লেখারই ছবি ছাপা হয় দেশ পত্রে। কিন্তু মনে হয়, অনবধানবশতঃ বিভিন্ন অংশের বিদ্যাস যথোচিত হয় নাই । তবে প্রথম স্তবকের পাঠ সন্দেহাতীত । > ミS