প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:প্রহাসিনী-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/২৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পরিণয়মঙ্গল তোমাদের বিয়ে হল ফাগুনের চৌঠা, অক্ষয় হয়ে থাক সি দুরের কৌটা। সাত চড়ে তবু যেন কথা মুখে না ফোটে, নাসিকার ডগা ছেড়ে ঘোমটাও না ওঠে ; শাশুড়ি না বলে যেন কী বেহায়া বেটা" ॥ পাক-প্রণালী’র মতে কোরো তুমি রন্ধন, জেনো ইহা প্রণয়ের সব-সেরা বন্ধন । চামড়ার মতো যেন না দেখায় লুচিটা, স্বরচিত বলে দাবি নাহি করে মুচিটা ; পাতে বসে পতি যেন নাহি করে ক্রনদন ॥ যা-ই কেন বলুক-না প্রতিবেশী নিন্দুক খুব ক’ষে আঁটা যেন থাকে তব সিন্দুক । বন্ধুরা ধার চায়, দাম চায় দোকানি, চাকর-বাকর চায় মাসহারা-চোকানি— ত্রিভুবনে এই আছে অতি বড়ো তিন দুখ ৷ ૨8