পাতা:প্রেমের খেলা - প্রিয়নাথ মুখোপাধ্যায়.pdf/৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

প্রেমের খেলা।


লাসটী পরীক্ষা করিয়া দেখিলাম, প্রায় দশ ঘন্টা পূর্বে তাহার মৃত্যু হইয়াছে। কিন্তু বাহিক অবস্থা দেখিয়া রেখ হইল না যে, সে উদ্বন্ধনে প্রাণত্যাগ করিয়াছে। তখন কাহাকেও কোন কথা না বলিয়া ঘরের চারিদিক একবার ভাজ করি অনুসন্ধান করিলাম। পরে রামকে ডাকিয়া জিজ্ঞাসা করিলাম, কখন তুমি এ ব্যাপার জানিতে পারিয়াছ?”

 রামের বয়স প্রায় চল্লিশ বৎসর। তাহাকে দেখিতে ঘোর কৃষ্ণবর্ণ, শীর্ণ ও খর্ব্বাকৃতি। তাহার মুখশ্রী নিতান্ত মন্দ নয়, কিন্তু তাহার সম্মুখের দুইটা দন্ত প্রায়ই বাহির হইয়া থাকে বলিয়া তাহাকে সচরাচর অতি কদাকার দেখায়। রামচন্দ্র আমার সম্মুখে দাড়াইয়া হাতজোড় করিল। পরে অতি বিনীতভাবে যদি, “হুজুর! আজ সকালে বাড়ীতে আসিয়াই এই কাণ্ড দেখিয়াছি। কাল বাড়ীতে ছিলাম না—অতি প্রত্যুষেই আমার ছোট স্ত্রীকে লইয়া বেলঘরে পঞ্চাননতলায় গিয়াছিলাম। সমস্ত দিন সেখানে থাকিয়া ভোর রাত্রে সেখান হইতে রওনা হই এবং বেলা প্রায় আটটায় সময় বাড়ীতে উপস্থিত হই।”

 আমি জিজ্ঞাসা করিলাম, তোমার কি দুই বিবাহ?”

 রা। আজ্ঞে হাঁ; যে গলায় দড়ী দিয়াছে, সেই আমার বড় স্ত্রী-নাম ঝালী।

 আ। গলায় দড়ী দিবার কারণ কিছু জান?'

 রা। আছে না হুজুর! আমি তাহার কিছুই জানি না।

 আ। ইহার পূর্বে কোনদিন কি তোমাদের মধ্যে বিবাদ হইয়াছিল?

 রা। আজ্ঞে না।