পাতা:বত্রিশ সিংহাসন - নীলমণি বসাক.pdf/১৩৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

১৩২

বত্রিশ সিংহাসন।

করা হইলনা, রাজা অন্তঃপুরে গমন করিলেন। দিবস প্রত্যুষে প্রাতঃকৃত্যাদি করিয়া পুনর্ব্বার সভায় আসিয়া সিংহাসন সমীপে দণ্ডায়মান হইলে,

তারা ঊনবিংশ পুত্তলিকা

হাস্য করিয়া কহিল, মহারাজ তুমি কি উন্মাদগ্রস্ত হইয়াছ, তুমি এই সিংহাসনে উপবেশন করিলে পাপগ্রস্ত হইবে, ইহা কি একবারও মনে কর না। তুমি রাজা বিক্রমাদিত্যকে কি জ্ঞান করিয়াছ। আমাদের হৃদয়। কমলরূপ, রাজা বিক্রমাদিত্য তাহার মধুকর ছিলেন। তুমি কীট হইয়া কোন সাহসে আমাদের অঙ্গে চরশোত্তোলন করিতে চাহ। রাজা বলিলেন তুমি কোন বিবেচনায় আমাকে কীট বলিয়া ব্যাখ্যা করিলে। পুত্তলী উত্তর করিল তবে এক বিবরণ কহি শ্রবণ কর।

 এক দিবস, সামুদ্রিকশাস্ত্রে সুপণ্ডিত সামুদ্রিক নামে এক ব্রাহ্মণ বন গমন করিতে করিতে দেখিলেন, কোন ব্যক্তি ঐ পথ দিয়া গিয়াছে, তাহার চরণচিহ্ রহিয়াছে। ঐ পদচিহ্নে পদ্ম ও উর্দ্ধরেখা আছে। ভদবলোকনে মনে মনে ভাবিলেন এই পথদিয়া কোন রাজপুরুষ গিয়া থাকিবেন, তাহার সহিত সাক্ষাৎ করিতে হইবে। ইহা ভাবিয়া চিল্লানুগামী হইয়া চলিলেন, ব্রাহ্মণ এক ক্রোশ পথ গমন করিয়া দেখিলেন এক সামান্য মনুষ্য বৃক্ষ হইতে কাষ্ঠ ভগ্ন করিয়া বোর বান্ধিতেছে। বিপ্র তাহার নিকটে গিয়া জিজ্ঞাসা