পাতা:বত্রিশ সিংহাসন - নীলমণি বসাক.pdf/১৪৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

১৪০

বত্রিশ সিংহাসন

নোপবেশন কর, নতুবা এ আশা পরিত্যাগ কর। এই প্রকারে সে দিবসের শুভক্ষণও অতীত হইল, রাজা আপন মন্দিরে গেলেন। রাত্রি কোন প্রকারে বঞ্চন হইল। প্রাতঃকালে রাজা প্রাতঃকৃত্যাদি করিয়া সিংহাসনারোহণার্থ তৎসমীপে আসিয়া দণ্ডায়মান হইলে,

অনুরোধবতী একবিংশ পুত্তলিকা

কহিল হে ভোজরাজ তুমি আপনাকে এই সিংহাসনে বসিবার যোগ্য বিবেচনা করিয়া কেবল বৃথা অহস্কার প্রকাশ করিতেছ। আমি তোমাকে এক বিবরণ বলিতেছি শ্রবণ কর, তাহার পর সিংহাসনে বসিও।

 মাধব নামে এক ব্রাহ্মণকুমার ছিলেন। তিনি সাক্ষাৎ কপের ন্যায় রূপবান। যে নারী তাহার সেই অপরূপ রূপ দর্শন করিত সে একবারে মোহিত হইত। ঐ ব্রাহ্মণকুমার সকল প্রকার বিদ্যাভ্যাস করিয়া ছিলেন। সঙ্গীত বিদ্যা উত্তমরূপ জানিতেন। তিনি স্বভাবতঃ সপষ্টবাদী ছিলেন। ফলতঃ ততুল্য মনুষ্য প্রায় দেখাযায় না। তিনি সর্বদা ভ্রমণকারী ছিলেন এবং সকল রাজসভায় যাইতেন, সকল রাজাই তাহাকে সমাদর করিতেন। কিন্তু কোন স্থানে বহুকাল বাস করিতেন না। ব্রাহ্মণকুমার এই প্রকার নানা দেশ ভ্রমণ করিতে করিতে এক সময়, কাম নগরীতে আসিয়া উপস্থিত হইলেন। কামসেন নামে ঐ নগরের ভূপতি ছিলেন। সঙ্গীত বিদাতে সুনিপুণ কামকন্দলা নামী