পাতা:বন-ফুল - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

বন-ফুল

১১

তবুও উত্তর নাই, নীরব সকল ঠাই—
তটিনী বহিয়া যায় আপনার মনে!
পাদপ আপন মনে, প্রভাতের সমীরণে
দুলিছে, গাইছে গান সর সর স্বনে!
সমীরে কুটীর শিরে, লতা দুলে ধীরে ধীরে
বিতরিয়া চারিদিকে পুষ্প-পরিমল!
আবার পথিকবর, আঘাতে দুয়ার পর—
ধীরে ধীরে খুলে গেল শিথিল অর্গল।
বিস্ফারিয়া নেত্রদ্বয়, পথিক অবাক রয়
বিস্ময়ে দাঁড়ায়ে আছে ছবির মতন।
কেন পান্থ, কেন পান্থ, মৃগ যেন দিকভ্রান্ত
অথবা দরিদ্র যেন হেরিয়া রতন!
কেনগাে কাহার পানে, দেখিছ বিস্মিত প্রাণে
অতিশয় ধীরে ধীরে পড়িছে নিশ্বাস?
দারুণ শীতের কালে, ঘর্ম্ম বিন্দু ঝরে ভালে
তুষারে করিয়া দৃঢ় বহিছে বাতাস!
ক্রমে ক্রমে হয়ে শান্ত, সুধীরে এগােয় পান্থ
থর থর করি কাঁপে যুগল চরণ—
ধীরে ধীরে তার পরে, সভয়ে সঙ্কোচ ভরে
পথিক অনুচ্চ স্বরে করে সম্বােধন।