পাতা:বাংলা শব্দতত্ত্ব - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর -দ্বিতীয় সংস্করণ.pdf/১২৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Ꮍ8 শব্দতত্ত্ব উদ্ভূত,– হৰ্ণলে বলেন মানব হইতে প্রাচ্য হিন্দীতে মনুষ্যগণকে মনই বলে, মানে শব্দ তাহারই অনুরূপ । হিন্দিতে কর্তৃকারক বহুবচন লোগ ( লোক ) শব্দযোগে সিদ্ধ হয় । ঘোড়ালোগ ঘোড়াসকল । বাংলাতেও শ্রেণীবাচক বহুবচনে লোক শব্দ ব্যবহৃত হয়,—যথা পণ্ডিতলোক, মূৰ্খলোক গরীবলোক, ইত্যাদি । আসামি ভাষায় বিলাক, হঁত এবং বোর শব্দ যোগে বহুবচন নিম্পন্ন হয়। তন্মধ্যে হঁত শব্দ সম্বন্ধে আলোচনা করা হইয়াছে। বিলাক এবং বোর শব্দের উৎপত্তি নির্ণয় স্কুকঠিন । যাহাই হৌক বিস্ময়ের বিষয় এই যে, কর্তৃকারক এবং সম্বন্ধের বহুবচনে বাংলা প্রায় সমুদয় গৌড়ীয় ভাষা হইতে স্বতন্ত্র। কেবল রাজপুতানি এবং নেপালি হিন্দির সহিত তাহার কথঞ্চিৎ সাদৃশু আছে। কিন্তু মনোযোগপূর্বক অনুধাবন করিলে অন্যান্য গৌড়ীয়ভাষার সহিত বাংলার এই সকল বহুবচনরপের যোগ পাওয়া যায় এই প্রবন্ধে তাহারই অনুশীলন করা গেল । সম্বন্ধের একবচনেও অপর গৌড়ীয় ভাষার সহিত বাংলার প্রভেদ আছে তাহ পূৰ্ব্বে বলা হইয়াছে, কেবল মাড়োয়ারি ও মেওয়ারি “রো” বিভক্তি বাংলার “র” বিভক্তির সহিত সাদৃশ্ববান। এ কথাও বলা আবশ্বক উড়িয়া ও আসামি ভাষার সহিতও এ সম্বন্ধে বাংলার প্রভেদ নাই। অপরাপর গৌড়ীয় ভাষায় “ক” প্রভৃতি যোগে ষষ্ঠীবিভক্তি হয়। কিন্তু একটি বিষয় বিশেষরূপ লক্ষ্য করিবার আছে ।