পাতা:বাংলা শব্দতত্ত্ব - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর -দ্বিতীয় সংস্করণ.pdf/১৪৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ভাষার ইঙ্গিত *}(t গালিগালাজ, ভাবনাচিস্তে, ধরপাকড়, টার্নাহঁ্যাচড়, রাধাছff}, নাচার্কোদ, বলাকওয়া, করাকৰ্ম্ম । , j 、" ・ ・・;・; এমন কতকগুলি কথা আছে যাহার দুই অংশের কোনও অর্থ সামঞ্জস্ত পাওয়া যায় না যেমন-মেগেপেতে, কেঁদেকেটে, বেয়েছেয়ে, জুড়েতেড়ে, পুড়েঝড়ে, কুড়িয়েবাডিয়ে, আগেভাগে, গলমন্দ, পাকেপ্রকারে । বাংলা ভাষায় “পত্র” শব্দযোগে যে কথাগুলির উৎপত্তি হইয়াছে সেগুলিকেও এই শ্রেণীভুক্ত করা যাইতে পারে । কারণ, গহনাপত্র শব্দে গহনা শব্দের সহিত পত্র শব্দের কোনোও অর্থসামঞ্জস্ত দেখা যায় না। ঐরুপ তৈজসপত্র, জিনিষপত্র, খরচপত্র, বিছানাপত্র, ঔষধপত্র, হিসাবপত্র, দেনাপত্র, আসবাবপত্র, পুথিপত্র, বিষয়পত্র, চোতাপত্র, দলিলপত্র এবং খাতাপত্র। ইহাদের মধ্যে কোনোও কোনোও কথায় পত্র শব্দের কিঞ্চিৎ সার্থকতা পাওয়া যায় কিন্তু অনেক স্থলে নয় । நி যে সকল জোড়াশব্দের দুষ্ট অংশের এক অর্থ নহে কিন্তু অর্থ ট কাছাকাছি তাহাদের দৃষ্টান্ত –মালমসলা, দোকানহাট, হাকডাক, ধীরেস্থস্থে, ভাবগতিক, ভাবভঙ্গি, লম্ফঝল্ফ, চালচলন, পালপাৰ্ব্বন, কাগুকারখানা, কালিঝুল, ঝড়ঝাপট, বনজঙ্গল, খানাখন্দ, জোতজমা, লোকলস্কর, চুরিচামারি, উকিঝু কি, পাজিপুথি, লম্বাচওড়া, দলামলা, বাছবিচার, জালাযন্ত্রণা, সাতপাচ, নয়ছয়, ছকড়া-নকড়া, উনিশবিশ, সাতসতেরো, আলাপপরিচয়, কথাবাৰ্ত্তা, বনবাদাড়, ঝোপঝাড়, হাসিখুসি, আমোদ আহলাদ, লোহালক্কড়, শাকসবজি,