পাতা:বাংলা শব্দতত্ত্ব - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর -দ্বিতীয় সংস্করণ.pdf/১৬১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বাংলা ব্যাকরণে তিৰ্য্যকৃরূপ ጏ❖ዓት পুনশ্চ তাহাতে এ যোগ হইয়া হয় “সবাএ”। এই “সবাএ” শব্দকে আমরা “সবাই” উচ্চারণ করিয়া থাকি । “জন” শব্দ “সব” শব্দের দ্যায় ! বাংলায় সাধারণতঃ “জন” শব্দ বিশেষণ রূপেই ব্যবহৃত হয়। একজন লোক, দুজন মানুষ ইত্যাদি । বস্তুত মানুষের পূৰ্ব্বে সংখ্যা যোগ করিবার সময় আমরা তাহার সঙ্গে “জন” শব্দ যোজনা করিয়া দিই। পাচ মানুষ কখনোই বলি না, পাচজন মানুষ বলি। কিন্তু এই “জন” শব্দকে য়দি বিশেষ্য করিতে হয় তবে ইহাকে তিৰ্য্যকৃরূপ দিয়া থাকি। দুজনে, পাঁচজনে ইত্যাদি । “সবাএ” শব্দের ন্যায় “জনাএ” শব্দ বাংলায় প্রচলিত অাছে—এক্ষণে ইহা “জনায়” রূপে লিখিত झम्न । বাংলায় “অনেক” শব্দটি বিশেষণ। ইহাও বিশেষ্যরূপ গ্রহণকালে “অনেকে” হয় । সৰ্ব্বত্রই এ নিয়ম খাটে। “কালোএ” ( কালোয় ) যার মন ভুলেছে শাদাএ ( শাদায় ) তার কি করবে।” এখানে কালো ও শাদা বিশেষণপদ তিৰ্য্যকৃরূপ ধরিয়া বিশেষ্য হইয়াছে। “অপর” “অন্ত” শব্দ বিশেষণ কিন্তু “অপরে” “অন্যে” বিশেষ্য । “দশ” শব্দ বিশেষণ, “দশে” বিশেষ্য ( দশে ষ। द८ल ) । নামসংজ্ঞা সম্বন্ধে এ প্রকার তিৰ্য্যকুরূপ ব্যবহার হয় না— কখনো বলি না, “যাদবে ভাত খাচ্চে।” তাহার কারণ পূৰ্ব্বেই নির্দেশ করা হইয়াছে, বিশেষ নাম কখনো সামান্ত বিশেষ্য পদ হইতে পারে না। বাংলায় একটি প্রবাদ বাক্য আছে “রামে,