পাতা:বাংলা শব্দতত্ত্ব - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর -দ্বিতীয় সংস্করণ.pdf/১৬২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


`२br শবদ তত্ত্ব মারলেও মরব রাবণে মারলেও মরব।” বস্তুত এখানে “রাম” ও “রাবণ” সামান্ত বিশেষ্য পদ=এখানে উক্ত দুই শব্দের দ্বারা দুই প্রতিপক্ষকে বুঝাইতেছে। কোনো বিশেষ রাম রাবণকে বুঝাইতেছে না । তিৰ্য্যকরূপের মধ্যে প্রায়ই একটি সমষ্টিবাচকতা থাকে। যথা “আত্মীয়ে তাকে ভাত দেয় না।” এখানে আত্মীয়সমষ্টিই বুঝাইতেছে। এইরূপ “লোকে বলে।” এখানে “লোকে” অর্থ সৰ্ব্বসাধারণে । “লোক বলে” কোনো মতেই হয় না। সমষ্টি যখন বুঝায় তখন “বানরে বাগান নষ্ট করিয়াছে” ইহাই ব্যবহার্য্য —“বানর করিয়াছে” বলিলে বানর দল বুঝাইবে না। ংখ্যাসহযোগে বিশেষ্যপদ যদিচ সামান্যতা পরিহার করে তথাপি সকৰ্ম্মক রূপে তাহাদের প্রতিও একার প্রয়োগ হয়, যেমন “তিন শেয়ালে যুক্তি করে গৰ্ত্তে চুক্ল,” এমন কি “আমরা” “তোমরা” “তারা” ইত্যাদি সৰ্ব্বনাম বিশেষণের দ্বারা বিশেষ্যপদ বিশেষভাবে নিদিষ্ট হইলেও সংখ্যার সাম্রবে তাহার। ভিৰ্য্যকৃরূপ গ্রহণ করে । যেমন, “তোমরা দুই বন্ধুতে” “সেই দুটো কুকুরে” ইত্যাদি। অনেকের মধ্যে বিশেষ একাংশ যখন এমন কিছু করে অপরাংশ যাহা করে না তখন কর্তৃপদে তিৰ্য্যকৃরূপ ব্যবহার হয় । যথা "তাদের মধ্যে দুজনে গেল দক্ষিণে”—এরূপ বাক্যের মধ্যে একটি অসমাপ্তি আছে। অর্থাৎ আর কেহ আর কোনো দিকে গিয়াছে বা বাকি কেহ যায় নাই এরূপ বুঝাইতেছে। যখন বলি