পাতা:বাংলা শব্দতত্ত্ব - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর -দ্বিতীয় সংস্করণ.pdf/৩৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বাংলা উচ্চারণ L ওটা বিদেশের আমদানী নতুন আসিয়াছে, বেলা থাকিতে ওটাকে বিদায় করা ভালে । ইংরাজের কামান আছে বন্দুক আছে কিন্তু ছাব্বিশটা অক্ষরই কি কম । ইহার। আমাদের ছেলেদের পাকযন্ত্রের মধ্যে গিয়া আক্রমণ করিতেছে । ইংরাজের প্রজা বশীভূত করিবার এমন উপায় অতি অল্পই আছে । বাল্যকাল হইতেই একে একে আমাদের অস্ত্র কড়িয়া লওয়া হয় ; আমাদের বাহুর বল, চোখের দৃষ্টি, উদরের পরিপাকশক্তি বিদায় গ্রহণ করে, তার পরে ম্যালেরিয়াকম্পিত-হাত হইতে অস্ত্র ছিনাইয়া লওয়াই বাহুল্য। আইন ইংরাজ রাজ্যের সর্বত্র আছে ( রক্ষা হউকু আর নাই হউক ) কিন্তু ইংরাজের ফাষ্টবুকে নাই । যখন বর্গির উপদ্রব ছিল তখন বর্গির ভয় দেখাইয়া ছেলেদের ঘুম পাড়াইত—কিন্তু ছেলেদের পক্ষে বগির অপেক্ষা ইংরাজী ছাব্বিশটা অক্ষর যে বেশি ভয়ানক সে বিষয়ে কাহারও দ্বিমত হইতে পারে না । ঘুমপাড়ানী গান নিম্নলিখিত মতে বদল করিলে সঙ্গত হয়—ইহাতে আজকালকার বাঙালীর ছেলেও ঘুমাইবে, বগির ছেলেও ঘুমাইবে – ছেলে ঘুমোল পাড়া জুড়োল ফাষ্টবুক্‌ এল দেশে— বানান ভুলে মাথা থেয়েছে একজামিন দেবে। কিসে ! পূৰ্ব্বে আমার বিশ্বাস ছিল আমাদের বাংলা অক্ষর উচ্চারণে কোনো গোলযোগ নাই। কেবল তিনটে স, দুটো ন ও দুটে। জ,