পাতা:বাংলা শব্দতত্ত্ব - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর -দ্বিতীয় সংস্করণ.pdf/৭৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বাংলা শব্দদ্বৈত ●ぬ উপরে উপরে—এগুলি নিয়তবর্তিতাবাচক । অর্থাৎ এগুলিতে, সৰ্ব্বদা লাগিয়া থাকার ভাব ব্যক্ত করে। চলিতে চলিতে, হাসিতে হাসিতে, চলিয়া চলিয়া, হাসিয়া হাসিয়া—এগুলি দীর্ঘকালীনতাবাচক । অন্য অন্ত, অনেক অনেক, নুতন নূতন, ঘন ঘন, টুকুর। টুকরা—এগুলি বিভক্ত বহুলতাবাচক । “নৃতন নূতন কাপড়” বলিলে প্রত্যেক নূতন কাপড়কে পৃথক করিয়া দেখা হয়। “অনেক অনেক লোক” বলিলে লোকগুলিকে অংশে অংশে ভাগ করা হয়, কিন্তু শুদ্ধ *অনেক লোক” বলিলে নিরবচ্ছিন্ন বহু লোক বোঝায় । লাল লাল, কালে কালো, লম্বা লম্বা, মোটা মোটা, রকম রকম—এগুলিও পূৰ্ব্বোক্ত শ্রেণীর । লাল লাল ফুল বলিলে ভিন্ন ভিন্ন অনেকগুলি লাল ফুল বুঝায়। যাকে যাকে, যেমন যেমন, যেখানে যেখানে, যখন যখন, যত যত, যে যে, যারা যারা—এগুলিও পূৰ্ব্বোক্তরূপ ৷ আশায় আশায়, ভয়ে ভয়ে—এ দুইটিও ঐ প্রকার । আশায় আশায় আছি অর্থাৎ প্রত্যেক বার অাশা হইতেছে ; ভয়ে ভয়ে আছি অর্থাৎ বারংবার ভয় হইতেছে। অর্থাৎ ক্ষণে ক্ষণে পৃথক পৃথক রূপে আশা বা ভয় উদ্রেক করিতেছে। মুঠো মুঠে, ঝুড়ি ঝুড়ি, বস্তা বস্তা এগুলিও পূৰ্ব্বাহুরূপ । টাটুক-টাটুকা, গরম-গরম, ঠিক-ঠিক—এগুলি প্রকর্ষ বাচক |