পাতা:বাংলা শব্দতত্ত্ব - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর -দ্বিতীয় সংস্করণ.pdf/৮৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বাংলা কৃৎ ও তদ্ধিত (?...Y অনুজ্ঞায় আমরা “দেখ, ধাতুর উত্তর “ও” প্রত্যয় করিয়া বলি “দেখো," কিন্তু "তাকো” বলি না;"তাকা” ধাতুর উত্তর "ও” প্রত্যয় করিয়া বলি “তাকাও”। গঠন করো বলিতে হইলে গড় ধাতুর উত্তর “ও” প্রত্যয় করিয়া বলি “গড়ে,” কিন্তু “শয়ন করো” বুঝাইতে হইলে "গড়া” ধাতুর উত্তর “ও” প্রত্যয় করিয়া বলি "গড়াও”। আমাদের বহুমাত্রিক ক্রিয়াবাচক শব্দগুলি আকারাস্ত, সেইজন্য পুনশ্চ তাহার উত্তর অ| প্রত্যয় না হইয়। আন+ও প্রত্যয় হয়। মূল শব্দটি “আট্‌কা” বা চমক না হইলে অনুজ্ঞায় “আটকাও” হইত না, "চমকাও” হইত না । হিন্দিতে “পাকড়,” শব্দের উত্তর “ও” প্রত্যয় হইয়। “পাকড়ো” হয় ; সেই শব্দই বাংলায় “পাকড়া” রূপ ধরিয়া “পাকৃড়াও” হইয়া দাড়ায় । অন প্রত্যয় । দৃষ্টাস্ত–মাতন, চলন, কাদন, গড়ন ( গঠন ক্রিয় ), ইত্যাদি। ইহারা ক্রিয়াবাচক বিশেষ্য শবদ । অন প্রত্যয়সিদ্ধ পদার্থবাচক শব্দের উদাহরণও মনে পড়ে — যেমন, ঝাড়ন, বেলুন (রুটি বেলিবার), মাজন, গড়ন (শরীরের ), ফোড়ন, ঝোটন ( ঝুটি হইতে ) ; পাচন । অন+আ প্রত্যয় । অন প্রত্যয়ের উত্তর পুনশ্চ আ প্রত্যয় করিয়া কতকগুলি ক্রিয়াবাচক বিশেষণের স্বষ্টি হইয়াছে । ইহারা বিকল্পে বিশেষ্যও হয় । যেমন পাওন হইতে পাওনা, দেওন হইতে দেনা ; ফেলন হইতে ফেলনা ; মাগন হইতে মাগন, শুকন হইতে শুকনা।