পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/১১৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


२७ এবার ভাল ভাব পেয়েছি । কালীর অভয়পদে প্রাণ সঁপেছি। ভুবের কাছে পেয়ে ভাব, ভাবীকে ভাল ভুলায়েছি। তাই রাগ দ্বেষ লোভ ত্যজে, সত্ত্বগুণে মন দিয়েছি । তার নাম সারাংসার, আত্মশিক্ষায় বাধিয়াছি। সদা দুর্গ দুর্গ দুর্গ বলে, দুর্গ নামের কাছ করেছি। প্রসাদ ভাবে যেতে হবে, একথা নিশ্চিত জেনেছি। লয়ে কালীর নাম পথের সম্বল, যাত্রা করে বসে আছি ॥ সাধের ঘূমে ঘুম ভঙ্গে না। ভাল পেয়েছ ভৰে কাল বিছানা | এই ধে মৃখের নিশি, জেনেছ কি ভোর হবে না তোমার কোলেতে কামনা কাস্তা, তারে ছেড়ে পাশ ফের না | আশার চাদর দিয়াছ গায়, মুখ ঢেকে তাই মুখ খুল না। আছ শীত গ্রীষ্ম সমান ভাবে, রঞ্জক ঘরে তায় কাচাও না । খেয়েছ বিষয়-মদ, সে মদের কি ধোয় খোচে না আছ দিবানিশি মাতল হয়ে, ভ্ৰমেও কালী বল না। অতি মূঢ় প্রসাদ রে তুই ঘূময়ে আশ পুরে না তোর ঘুমে মহা ঘুম আসিবে ডাকিলে আর চেতন পাবে না। শমন হে আছি দাড়ীয়ে। আমি কালী নামের গণ্ডী দিয়ে। কালোপরে কালীপদ, সে পদ হৃদে ভাবিয়ে। মায়ের অভয় চরণ, যে করে স্মরণ, কি করে তার মরণ ভয়ে। கிம்காது মা বিরাজে ঘরে স্বরে। এ কথা ভাঙ্গিব কি হাড়ি চাতরে ॥ ভৈরবী ভৈরব সঙ্গে, শিশু সন্ম কুমারী রে। | বাঙ্গালীর গান । যেমন অনুজ লক্ষ্মণ সঙ্গে, জানকী তার সমিভ্যারে ॥ জননী, তনয়া, জায়, সহোদরা, কি অপরে, রামপ্রসাদ বলে, বলব কি আর, বুঝে লওগে ঠারে ঠোরে ॥ ললিত খাম্বাজ—একতালা । তিলেক দাড় ওরে শমন, বদন ভরে মাকে ডাকিরে। আমার বিপদকালে ব্রহ্মময়ী, এসেন কিনা এসেন দেখিরে ॥ লয়ে যাবি সঙ্গে করে, তার এত ভাবনা কিরে। তবে তারা-নামের কবচ-মালা, বৃথা আমি গলায় রাখিরে ॥ মহেশ্বরী আমার রাজা, আমি খাস্ তালুকের প্রজ, আমি কখন নাতান, কখন সাতান, কখন বাকীর দায়ে না ঠেকিরে ॥ প্রসাদ বলে মায়ের লীলা, অন্তে কি জানিতে পারে। ধার ট্রিলোচন না পেল তত্ত্ব, আমি অস্ত পাব কিরে ॥ মন গরিবের কি দোষ আছে। তুমি বাজীকরের মেয়ে তামা, যেপ্পি নাচাও তেপ্পি নাচে | তুমি কৰ্ম্ম, ধৰ্ম্মাধৰ্ম্ম, মৰ্ম্মকথা বুঝা গেছে। ওম, তুমি ক্ষিতি, তুমি জল, ফল ফলাচ্ছ ফল গাছে ॥ তুমি শক্তি, তুমি ভক্তি, তুমিই মুক্তি, শিব বলেছে। ওম, তুমি দুঃখ, তুমিই মুখ, চণ্ডীতে তা লেখা আছে ৷ প্রসাদ বলে, কৰ্ম্ম স্বত্র, সে স্থতার কাটনা কেটেছে । ওমা, মায়াহুত্রে বেঁধে জীব, ক্ষেপ ক্ষেপি খেল খেলিছে ।