পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/২২২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


$ 8 o বাহার-আড়াঠেকা । ত্রিপুরা ত্রিলোকতারা ধরাধরনন্দিনী । হাম্ভযুতা পূর্ণেন্দুবদনী হরমোহিনী ॥ প্রকৃতিপরা বিশ্বসারা সুরবন্দিনী, ভবহৃদিচর বর ধারাধরবরণী ॥ দশকর, নানা অস্ত্রধর, রিপুভয়ঙ্গরা, অজর অমর অমরে বরাভয়দায়িনী । ভবাদি নিস্তার, নিরাকারানন্তরূপিণী ; দীন-দুঃখ-হরা, অকিঞ্চন দরদরিণী ॥ গৌরী—আড়া। কেমনে হব পার ভব-জলনিধি, তোমার করুণা বিনে তারিণী এবার। বিবিধ পাপেতে অতি ভার, মম কলেবর, নিমগ্ন হয়েছি দুর্গে করগে উদ্ধার ॥ অষ্টাঙ্গ যোগ সাধিয়ে, বিবেকে নিৰ্ম্মল ধীয়ে, হয় যার সে ত নাহি দিবে তোমারে ভার। ক্রিয়াহীন অজ্ঞান, নিৰ্গুণ হীন অকিঞ্চন, যদি তরে তবে জানি মহিমা তোমার ॥ দ্যমিকল্যাণ–একতালা । পামর জীবে শিবে কুরু কটাক্ষ করুণ স্বভাবে। তবে গো পতিতপাবনী নাম উজ্জ্বল হবে। আজন্ম কুরুস বিলাসে ভুলে, না মজিলাম দুর্গে তবাঞ্জিকমলে, পুরান্তক শ্ৰীশ সাধনে নিরবকাশ আশমাত্র নামেরি বলে, অকিঞ্চন ভাগ্য, হবে কি যোগ্য, পারেতে কুপার্ণবে। & இ_ _ খাম্বাজ—আড়। সিংহবাহিনী ত্রিশূলধারিণী, হাসিত বদনী ত্রিনয়নী মহিষ-মদিনী । রূপে জগং মোহিত, ত্রিভুবন প্রকাশিত, একত্র উদিত, শত স্থির সৌদামিনী। গন্ধৰ্ব্ব সিদ্ধ চারণ, পুটাঞ্জলি দেবগণ, ভয়েতে পাইয়ে ত্রাণ, করে জয়ধ্বনি। দাস অকিঞ্চন আশ, নাশ মম ভৰপাশ, তবে সে বিশেষ যশ, প্রকাশে তারিণী ॥ বাঙ্গালীর গান । মুলতান-কাওয়ালী । বলিব তারিণী তার মোরে তারিণী শিবে। ভজন সাধন কি এমন আছে গো আমার ॥ ক্ষিতিতে নিমগ্ন মতি, কোথা তব তত্ত্ব স্মৃতি, অহিতেতে কৃতী আমি, অতি দুরাচার গোম! ॥ নানা শাস্ত্র বিচারণে, প্রচার গো ত্রিভুবনে, শুনি দুর্গে তোমার যে মহিমা অপার। কৃপাময়ী কুপেক্ষণে, সকুদৃ যদি হের দীনে, তবে সে সন্তবে অকিঞ্চনের উদ্ধার গো মা ॥ হাম্বিব—একতালা । মাযোগমায়, যোগেশজায় যোগযুক্তজন বিনে। কে হয় যোগ্য বল দুর্গে ত্রিতত্ত্ব সাধনে ॥ আমি দীন মূঢ় হয়ে মত্ত, কুসঙ্গে করিয়া ভ্রমণ, তব তত্ত্ব,— শ্ৰুতি হারায়ে হয়েছি অজ্ঞানান্ধকূপেতে মগন, যদি স্বীয় গুণে, অকুতি দৃজনে, প্রসন্ন হও মা কুপাবলম্বনে, তবে অকিঞ্চন পায় পরিত্রাণ নিজ কুস্কৃতি-ভববন্ধনে ॥ ভৈরব-ঝ"পতাল । হর গৌরী মিলিতাঙ্গ হইয়ে কে বিহরে। কাঞ্চনে জড়িত যেন হীরক শি শোভা করে | আধ মৌলে জটা-পরিবেষ্টিত ফণী, কুলু কুলু ধ্বনি তায় করিছে মন্দাকিনী, চাচর চিকুর বেণী কি শোভে আধ শিরে। লোহিত বরণ এক নয়ন ঢল ঢল, অপর লোচন খঞ্জন জিনি রচিত কাজল, গলে অক্ষমালা দোলে মণি মুকুতা হারে । রতন কঙ্কণ বলয় অঙ্গুরী বাম ভুজে, অঙ্গুলি দলে নখরে ছলে কত বিধু সাজে, অন্তকর শোভিতেছে ত্রিশূল ডম্বরে। কিবা নীল পট অঞ্জিন পরিধান অতি সুন্দর, বামপদে কমলে বাজিছে ঘুমুর মঞ্জীর, - দক্ষিণ চরণে মৃত্য করি তাল ধরে। অৰ্দ্ধ ভালেতে কিবা ঝলকিছে বালকইন্দু, প্রকাশিছে অরুণ কিরণবিন্দু, অক্লিঞ্চনে ভাবে সদা ঐরূপ অস্তরে ॥