পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/২২৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১৩৬ বাঙ্গালীর গান । পুরবী—অtঙ্গ । গোবিন্দ গোপাল, পরম দয়াল, নিকটে যে কাল, রক্ষা কর দীনজনে। অনন্ত মহিমা তব, আমি কি জানি হে স্তব, নিরন্তর বিধিভব মগন যে ধ্যানে ॥ আজন্ম মলিনমতি, নাহি তব পদে রতি, দেহ মম গতি যদুপতি নিজগুণে। নিত্যস্ত কাতর হইয়ে, ডাকি প্রভু ভয় পাইয়ে, হেলা করিয়ে কুরু কুপা অকিঞ্চনে ॥ বেহাগ—আক্ৰীড়া । বিশ্বরূপ স্বরূপ রূপ নিরুপম কি রূপ সুন্দর। নবভিবরণ, প্রত্যঙ্গে রত্বভূষণ, শিরে শিধপুচ্ছ বনমালী পীতাম্বরধর ॥ এ রূপ স্থৎপদ্মাসনে, স্থাপিয়ে যতনে অকিঞ্চনে, so বাঞ্জে মুদি আঁখি দেখি নিরস্তর। শ্ৰীনাথ প্রসাদে যদি, এ সৌভাগ্য ঘটান বিধি, তবে ভবজলধি মাম্প্রতি না হয় দুস্তর। ৰাগেশ্বরী—কাওয়ালী । হরি পদপঙ্কজে মজরে মন, নহে বিলম্ব সহন। দেখ রবি দিনে দিনে করিছে আয়ু হরণ ॥ জীবন নিধন কলে, আন্ধারে রোধ হইলে, কেমনে হইবে কৃষ্ণ নামের স্মরণ। ভ্ৰমে মত্ত হয়ে কালে, অযতনে খোয়াইলে, এখন কিঞ্চিত হিত কররে সাধন। অকিঞ্চন মন দৃঢ়ভাবে জপ নারায়ণ, তবে রে দুর্জয় ভয় হয় নিবারণ ॥ সিন্ধু—একতালা । হরি কর হে পুরণ অভিলাষ এই আমার। শিরো মে প্রণাম শ্রুতি গুণের শ্রবণে, আঁখি তব রূপ সদা করে দরশন ॥ তবান্ত্রিকমলে কর, থাকে যেন নিরস্তর, রসন শ্ৰীকৃষ্ণ নাম করয়ে রটন। শেষে প্ৰভু লয়কালে তোমার পদ সলিলে, অকিঞ্চন হরি বলে ত্যজে এ জীবন too বেহাগ—যৎ । পাপানল লাগিল রে এ দেহ কাননে, ক্রমে করিছে দাহন, কি দেখরে নয়ন, রসন বলনা সদা শ্ৰীমধুসূদন ॥ নামগুণে তবে হবে বিপদ ভঞ্জন, হরিনাম বারি বিনে ইহা না হয় নিবারণ ॥ কলব্রাদি ধন, হিত নহে রে আপন, স্নেহযোগে এ অনল প্রবল কারণ । যদি এ সঙ্কটে বাঞ্ছা কর পরিত্রাণ, অকিঞ্চন প্রতিক্ষণ ধ্যায় গোবিন্দচরণ ॥ ললিত-অাড়া । মন বুদ্ধির অগোচর, নিরঞ্জন নিরাকার, নিরূপ না হয় যার, কি আশ্চৰ্য্য তারে বাঞ্ছা করে বিশ্বজন । সচ্চিদানন্দ পদার্থ, বাক্য মাত্র চরিতার্থ সে তত্ত্ব যথার্থ কেবা পেয়েছে কখন। নিৰ্গুণ ব্যক্ত সাধন, স্থূল তুষার স্বাতন, সগুণ সাধনে সদা কররে ধতন । কৃষ্ণপদ ধ্যানগুণে, চরমে নিৰ্ম্মল জ্ঞানে, অখণ্ডানন্দ প্রাপ্ত হুইবে অকিঞ্চন ॥ মেঘমল্লায়—আড়াঠেকা । অবিদ্যা ঘনে করিল নিবিড় অন্ধকার । অহমিতি মৰ্মেতি নাদে গর্জয়ে বারংবার ॥ ধনাশা বায়ু প্রচণ্ড, বহে প্রতিক্ষণ-দও, সশোকা করকা বর্ষে মোহ বারিধার ॥ পড়িয়ে দুর্যোগে হরি, অন্ধবং কিছু না হেরি, দেখি ক্লচিং যদা হয় চিত্তড়িৎ সঞ্চার। দুঃখাশনিতে মুৰ্ছিত, কভু ভ্ৰমে মুদাম্বিত, এ যন্ত্রণা অকিঞ্চনে কৃষ্ণ দিও না বার বার ॥ খাম্বাজ—জাড়া । একাগ্রচিত্ত হয়ে ভাব সদা নারায়ণ । তদেকনৈঠিক হ’লে হবে কৃপাবলোকন ॥ ঐকাস্তিক ভক্তি বিনে, কি করে বহু সাধনে, দৃঢ় মনে গোবিন্দচরণে মজ অকিঞ্চন।