পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/২৬৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ভ্রাত্মনাথ দাস । مسےحےGح محے سے DD DYDgg BBBB BtBB ggBBBB ggS BBBB BBBB BBB ggg ggg gAAAA DDD BBB BB BBS BB BBB BBBB BBB S BBBB BBBB K gBBgSAAAA সaিকট কোন উপনগবে ইহার নিবাস ছিল। রঘুনাথ, হরুঠ রে প্রথম প্রথম রচিত গানগুলি স’ শোধণ কবিয়া দিতেন ; এবং কৃতজ্ঞতার নিদর্শনস্বরূপ হরুঠাকুর সেই সকল গানের ভণিওtয় ওস্তাদ রঘুনাথের নামই প্রচার করিয়া গিয়াছেন। অনেকের মতে ইনিই দাড়া কবির স্বষ্টিকৰ্ত্তা। কদম্বতলে কে গে৷ বংশী বাঙ্গায়। হেরে পালটিতে আঁখি, নাহি পারি সখি ! এত দিন আসি যমুনা-গুলে, রঘু কহে একি দায়। আমি এমন মোহন মুরুতি কখন, த-க க দেখিনি এসে হেথায় ॥ عصيد অঙ্গ আগেীর-চন্দনচর্চিত, বনমাল। গলায় ; কেমন বিচার কর কুঞ্চ দেখব তাই ॥ গুঞ্জ বকুলের মালে, পাঠালেন জানতে ব্রজের রাজা রাই। বধিয়াছে চুড়া, ভ্রমর গুঞ্জরে তায় । , বৃন্দে সভামধ্যে, কহিছে নিসাধ্যে, সই, সজল নব জলদবরণ, ধরি নটবর বেশ ;- কৃষ্ণে করিয়ে প্রণাম ;– চরণ উপরে খুয়েছে চরণ, এই কি রসিক শেষ। এলাম বৃন্দাবন ধাম হতে, চন্দ্র চমকে, চলিতে চরণ, নখরের ছটায় ; রাধার সঙ্গিনী আমি হে শ্রাম ! আমার হেন লয় মন, জীবন যৌবন, দেখলেমৃতৰ রাজ্যের শিক্ষা — সঁপিব ও রাঙ্গা পায় ॥ আমি আজ করব তার পরীক্ষা। তোর দেখিবি লে| যদি সখি ! আয়ু আয়ু আয় কচ্ছ রাজ্য ভাল, নব্য ভূপাল, হায়! অনুপম রূপমধুরি সখি ! মুখ্যাতি শুনি হে সৰ্ব্ব ঠাই। হেরিলাম কি ক্ষণে ;–প্রাণ নিলে হরে’, শুনেছি তব রাজ্যে অবিচার নাই । ঈষত হেসে, বঙ্কিম নয়নে। ধন মন প্রাণ সপেছে যে যায় ;— মন্দ মধুর মুচকি হাসি চপলা চমকায় ; সে জন পায় কি তারে নাহি পায় ? কুলবতীর কুল-শীল, গেল গেল, স্বক্ষ বল আছে, ধৰ্ম্ম সহে ভার, মন মজিল হেরে উহায় ॥ মৰ্ম্মে ব্যথা যেন নাহি পাই ॥ সই, অলকা-আবৃত বদন, তাহে মৃগমদ তিলক, দেখ সত্য ত্রেত যুগে, যে যে হে আগে, মনোহর সাজ, নাসগ্রেতে গজ মুকুতার ঝলক। জন্মেছিল ভূপতি ; বিম্ব অধরে অপয়ে বেণু, সে রবে ধেনু চরায় ; মান্ধাত সগর, শ্রীরাম রঘুবর, কি মুন্দর মুঠাম, ত্রিভঙ্গ ভঙ্গিম, কৃৰ্ত্তিবীর্যার্জন প্রভৃতি। झं पू न ङ्गानि । সে সব রাজন, প্রজার পালন, সই, বেষ্টিত ব্রজবালক সবে, করত। যে ধৰ্ম্ম বিচার ; কি শোভা আ-মরি হায়!— তুমি রাজ্য অধিপতি হয়ে, গগনেতে তারাগণ-মাঝে, বিচার ক'ৰ্বছ বল কি প্রকার ॥ চদ যেন শোভা পায় । রাধার মধুর প্রেমের বিষয় ;– সই, কেন বা আপন খেয়ে, আইলাম যমুনায় কি বিচার কর্ণে বল দয়াময়!