পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/২৭১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রঘুনাথ দাস । § তোমায়, বিজ্ঞ জনে কয়, করুণাময়, এই কি তব করুণ ! আপ্তমুখে সুখ, না ভাব পর দুখ, কল্পে ভাল বিবেচনা। চক্ৰী নাম ধর, করিয়ে বিচক্র, লক্ৰ হ’লে গোপিকায় এত চক্র জান হে মুরারি মরি ধষ্ঠ পন্ত শু্যাম রায় ! * আর কে আছে বল যে এমন, নিতান্ত অনুগত বিসর্জন । রাজ্যপদে ভূলে, রাইকে ত্যজিলে, ভাব লেনক নারী বধের ভয় ॥ কিন্তু দিতে হবে রাজ রাধার কর। কৃষ্ণ, হ’লে হ’লে রাজ্যেশ্বর | দেখ মনে বুঝে, বৃন্দাবন মাঝে, রাজরাজেশ্বরী রাই ; সে যে বৃষভানু-রাজকন্তে, তেমন মান্তে, ত্ৰিজগতে নাই । যাব নাম কোন্তে মুরলীতে গান সে রাধা সৰ্ব্বপ্রকৃতিপ্রধান। সে রাজা রাখিয়ে, নাম না সই লইয়ে, রাজ্য কর কর বংশধর । 蟒 জান না যে আছে রাজা, রাজার উপর। স্কুলে ভুল, মূল হে তোমার যে জন, পিনে তার আজ্ঞা হয়েছ রাজন। ধষ্ঠ ক'রে তারে, মামতে হবে শুম ! করতে পারবেনাক অনাদর ॥ তুমি হও না কেন নৃপ, ব্রহ্মস্বরূপ, মূলাধার শ্রীরাধা ;— তাও জান শুম ! তোমার ঐ কৃষ্ণ নাম, রাধা নামের সঙ্গে বাধ । আত্মবিস্মৃতি, হয়েছে কি শ্ৰীপতি ? সত্য কহু দয়াময় ! তোমার শক্তিরূপিণী সে রাধ, আছে ব্যক্ত ত্ৰিজগতময়। জল স্থল শুষ্ঠ যেখানেতে রও — ত্রীরাধার রাজ্য ছাড়া কভু নও। রবার রাজ্যের অধীন, তার প্রেমাধীন, তুমি স্বাধীন কবে হ’লে নটবর ॥ এমন ভাগ্য কবে হলে গো রাধার, হরি-হরি—হরি কি আসিবেন আর ॥ কৃষ্ণ কুষ্ণ করি’, আমি ডেকে মরি, কৃষ্ণ অতি নিস্বরুণ ; পেয়ে কংস রাজার সৈরিস্ত্রী, হলেন ব্ৰজঙ্গনায় নিদারুণ । আর র্তার কার প্রতি বা মমতা, কি প্রেমে কুষ্ণ আসিবেন হেথা । আজ কি অভাব্য অচিন্তনীয়, আশ্চর্য্য শুনালে এ সমাচার | তুমি বট হিতকারিণী আমার । হিত নীত প্রীত বচনে এখন, হলে কি স্নিগ্ধ এ তাপিত মন । মিনিস্থতে গেথে, আর কি গলেতে, প’রবো নীলকান্তমণি-হার ॥ তুমি ক'ৰ্ছ বটে সখি, কৰ্ণেতে মুখী, প্রত্যয় না হয় মনে ; শুস্ক শাখাদল, সে অতি নিস্ফল, ফল বে কি গো এত দিনে ! দেখলে স্বনয়নে, সে বংশীবদনে, হয় সে মনের প্রীত ; তাহা নইলে তাপিত অন্তর, বৃথা কৰ্ছ অধিক তাপিত ॥ কও এ সধীরে স্বরূপ, পুনঃ কি হেরব সেই কালরূপ। প্রাণচাতক আর কি করবে পান, সেই নীলমেঘের কৃপাজলধার, ॥ জবা বিল্বদল তুলে, কালিনীর কূলে, কাত্যায়নী আরাধি', কামনা করে এই পেয়েছিলাম সেই, কৃষ্ণ প্রেমানন্দ-নিধি। আর কি কাতায়নী, অশ্বটখটনী, ঘটনা ঘটবেন এমন ॥ পাব ব্ৰজবাসীর জীবন, সাধনের ধন কৃষ্ণধন, নয় ত গো তেমন কপাল । দুঃখিনীর আর কি হবে মুখের কাল! সই কি পুনঃ, গুামচন্দ্রোদমেতে, , হরবে মম মনের আঁধার ? ॥