পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/৩০২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


સ્વ છે ૦ ললিত—একঙালা । আমার এই কথাটী পাল, আজি রেখে গোপাল, গোপালের গোপাল ল’য়ে যা ছিদাম । ওরে, কঁচা ঘুমে আমার, উঠিলে অৰোধ কুমার, ক্ষীর দিলেও হবেনা আঁখির জল-বিরাম ॥ যায় না ধেনু গোপাল না গেলে পর, গোপালের মাথার চুড়া মাথায় পর, ধর মুরলীধর, তুই মুরলীধর হয়ে যা রে,— বাছার মত যাবি আর বাজবি অবিরাম । গোপাল-বেশে হও রে গোপালে প্রবেশ, সাজিবে তোকে বেশ, তুই বাজালে বেণু, তার কি ভয় রে, ধেনু চিনিবে না রে ছিদাম, ছিদাম কি তুই শুম। ললিত—ঝাপত্তাল। আয় রে গোষ্ঠে যাই রে কানাই, গগনে উঠেছে ভানু। চঞ্চল চরণে চল, ভাই ! চঞ্চল হয়েছে ধেনু ॥ | অঞ্চল ছাড়িয়ে মায়ের শিরে পর মোহান চুড়, মুরলীধর! মুরলীধর, কাটতে পর পীত ধড়া, অলকা তিলক অঙ্গে পর নীলতনু ॥ १i"श्{ङ-य९ ।। বাণীর রব শুনে কানে, মন কেনে সই এমন করে। রাখিতে পীতবাসে সদা বাসে অস্তরে ॥ বাসে বাস পরিহরি, সাধ করি হেরিতে হরি, জীবন যৌবন কুল শীল, সপি তামের কমল করে ॥ জয়জয়ন্তি-বীপতাল। গুম জলদবরণ বামে, রাম রঞ্জত-গিরি দক্ষিণে। দেখে যশোদা যুগল কক্ষে, যুগল-রূপ যুগুল নয়নে ॥ প্রাণ-গোপালের বেশ, অমৃনি ফিরিবে ধেনু, । वांछांलौद्ग १ोंॉन । পদতলে তরুণ অরুণ কিবা শোভা করে, নখরে পতিত কোটি কোটি সুধাকরে, ঐ রূপ হেরিতে সাধ ত্ৰিলোচনে ॥ দাশরথি কুমতি আতি, কি হবে তার ভলে গঠি,| সঙ্গতি ও ধন বিনে,— তায় হয় কি দৃষ্ট, রামকৃষ্ণ— যুগল রূপ যুগল নয়নে ॥ i বহার—কাওয়ালী । যায় কালে কালে বলিলি লো জটিলে ! হৃদয়ে ভেবে ঐ কলে, জয়ী হলেন মহাকাল, কালকূট গরল-পান কালে কালে । হেরিয়ে সে রূপ কালো, অস্তরেতে জাগিছে,— সদা বিরিঞ্চি-বাঞ্ছিত আছে এ কালো পদতলে ; যখন চিনিতে নারিলি কাল, তোর ত নয় ভাল ভাল, তোর জলাভাবে গেল জীবন,— থেকে জলধিজলে ॥ | ললিত-ঝিঝিট—একতাল।। প্রাণ যায় ! এ সময় একবার আয় রে কানাই । ও রাখলের জীবন ! জীবন রাখ রে, ও জীবনধর-বরণ ! জীবনান্ত-কালে আসি, দেখা দে রে ভাই ! আমরা বিষ-জীবন-পানে, ত্যেজেছিলাম প্রাণে, তোর কুপা-কৃপাণে সে জ্বালা নিভাই,— ব্রজে বেজেছিলি, (গিরিধর রে! ) গিরি ধ'রে করে,— আজি বুঝি গিরিগুহে জীবন হারাই। ভাই ! তোর মহিমা যে, থাকে মহী মাঝে, যদি গিরি-মাঝে আজ দেখা পাই,— ও নীলকমল-তনু ! ঐ দেখ কঁদে ধেনু— না শুনে মধুর বেণু, ভবে, নিরুপায়ের উপায় ও পায় ভিন্ন নাই ॥ সিন্ধু-ভৈরবী—পোন্ত । ধাবনা করি মনে, মন কি মানে বাণী শুনে। বাণীতে মন উদাসী, হুই দাণী শ্রীচরণে ॥