পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/৩৫৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


રા કરે বাঙ্গালীর গান । তৃষ্ণ নিদ্রা ক্ষুধা মায়, শক্তিরূপ। শিবজায় ; নিওঁণা সগুণাত্মিক সৰ্ব্বস্বরূপিণী । হে কালি ! ত্বং শাস্তি ভ্রাস্তিভয়হারিণী, হরবধূ হেরম্বজননি, প্রণমামি। মুরাসিন্ধু সরসিজে, সদানন্দ নিত্যং ভজে, পঞ্চাশষ্মাতৃকারূপ, চন্দ্রার্দধারিণি, মা । কমলাকান্ত তব মহিমা কি জানে, তোমাময় ব্রহ্মগু, ব্রহ্মগুময় গো তুমি ৷ কালাংড়া একতাল । শুlমাধন কি সবাই পায়ু । অবোধ মন । বুদ্ধ না একি দায়। শিবেরো অসাধ্য সাধন, মন ! মজন রঙ্গা পায়ু ॥ ইলাদি সম্পদ মুখ, তুচ্ছ হয় যে ভাবে তয়। সদানন্দ মুখে ভাসে, শ্রাম যদি ফিরে চায়। যোগীন্দ্র মুনীন ইন্স, যে পদ না ধ্যানে পায়। নিগুণ কমলাকাস্তু, তবু সে চরণ চায় ॥ ঝিকিট একভলি । তরুণী মাঝি মেয়ে, রে ; চল দেখে আসি গিয়ে। এভব তরঙ্গ দেখে কি কর বসিয়ে ॥ দশ মহাবিদ্যা রোয়েছে বেরিয়ে । তার মাঝে বসে আমার শঙ্গর যোগিয়ে | বাজিছে মৃদঙ্গ মাদল, তাতা থেয়ে থেয়ে। দেব সারি গায় কমল, অতুল ভাবিয়ে ৷ গৌরী-জলপ ভেতালা । ওরে মধুকর রে! মজিলে কি রসে । হেরিয়ে না হের মা মোর, সুধা বরিষে ॥ ত্যজিয়ে পরম রস, হইয়ে ইন্দ্রিযুবশ, আপনার অলসে। অচেতন মূঢ় সম, মিছা আশে সদা ভ্ৰম, কমল নিৰ্ম্মল প্রেম, রাখিবে কিসে ॥ বেহাগ-ত্তেওট । আমি কি হেরিলাম নিশি স্বপনে । এই এখনি শিয়রে ছিল, গৌরী আমার কোথায় গেল, হে ! আধ আধ মা বলিয়ে বিধুবদনে ॥ মনের তিমির নাশি, উদয় হইল আসি, বিতরে অমৃত রাশি সুললিত বচনে। অচেতনে পেয়ে নিধি, চেতনে হারলাম গিরি, হে ! ধর্য না ধরে মম জীবনে ॥ আর শুন অসম্ভব, চারিদিকে শিৰারব ; হে ! তার মাঝে আমার উমা একাকিনী শ্মশানে। বল কি করি আর, কে আনিবে সমাচার, হে ! না জানি মোর গৌরী আছে কেমনে। কমলাকাস্তের বাণী, পুণ্যবতী গিরিরাণী, গো ! যেরূপ হেরিলে তুমি অনায়াসে শয়নে। ওপদ পঙ্কজ লাগি, শঙ্কর হৈয়েছে ধোগী, গো ! হরহদিমাঝে রাখে, অতি যতনে ॥ কেদারা-একতাল । গিরি : প্রণগেীরী আন আমার। উমা বিধুমুখ, না দেখি বারেক, এবর লাগে অন্ধকার | আজি কালি করি দিবস যাবে, প্রাণের উমারে আনিবে কবে; প্রতিদিন কিহে আমারে ভুলবে, একি তব অবিচার ॥ সোণার মৈনাক ডুবিল নীরে, সে শোকে রয়েছি পরাণে ধরে ; ধিকৃ হে আমারে, ধিকৃ হে তোমারে, জীবনে কি সধ আর ॥ কমলাকাস্ত কহে নিতান্ত, কেন্দনাকে রাণি হও গো ! শাস্ত ; কে পাইবে তোমার উমার অস্ত, তুমি কি ভাব আসার। ভৈরবী—জলদ ভেতাল।। কবে যাবে বল গিরিরাজ ! গৌরীরে আমিতে। গিরিরাজ ! অচেতনে কত না ঘুমাও হে ৷ ব্যাকুল হৈয়েছে প্রাণ, উমারে দেখিতে, হে ॥