পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/৪২০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Վ9ՀԵ পত্রের নাহি দোষাদোষ, যদি থাকে দোষ, দোষীর কপালে দোষ ঘটাতে পারে ; তাতে অবলার চিত্র, সহজে বিচিত্র, বিচ্ছেদেতে চিত্ত চাঞ্চল্য করে ॥ ভৈরবী—একতাল।। কার ভাগ্যে কি লেখা, লিখেছ হে সখা, কেবল চক্ষে দেখা, বুঝে উঠ দায়। কুবুজা কংসের দাস, সে হয় রাজমহিষী, পূর্ণ শশী রাধা লুষ্ঠিত ধরায় ॥ ওহে, কারেও কর ধনী, কার হর ধ্বনি, কারে বা নিৰ্দ্ধনী ঝর চিন্তামণি, এমন যে ফণী, খলের শিরোমণি, দিয়েছ হে মণি সে ফণীর মাথায় ॥ थंॉप ख-पंग्निद्रां । মরি কি লিখন তোমার, লিখেছ হে নাগর চিস্তামণি। দাসী কর রাণী, রাণী কাঙ্গালিনী, শাকে বালি, কারোধে চিনি। কারো ভাগ্যে কান্না, কারো ভাগ্যে হাসি, কারো ভাগ্যে হাসি, কারো ভাগ্যে ফঁালী, কারে স্বৰ্গবাসী, কারে শ্মশানবাসী, বঁশের বাণী করে বনবাসিনী। মনহরসাহী—রাপক। লম্পট নিরদয়, তোমায় দয়াময়, হরি বলে কোন গুণে । কেহ চন্দনদানে, বসে সিংহাসনে, কেও বা প্রাণ দানে স্থান পেলে না চরণে ॥ কুজা বিপিনে, হ’ল নবীনে, হেদে ও শ্রাম তোমা বিনে, যেমন রাম বিনে, জানকী অশোক বনে। রাজকন্ত! বনবাসী, দাসী হয় রাজমহিষী, সকলি তোমার কৃপায়, যারে রাখ পায়, সে সকলি পায়, হরি ধারে না রাখ পায়, বিপদ ঘটাও পায় পায়, হাসি পায় হে, পায় ধরার দিন পড়লে মনে ॥ বাঙ্গালীর গান । श्वप्रै-१९ ।। আমি ব্রজেতে লিখিতে পেলাম কই । শিশু কালাবধি, নিরবধি, জানি না ঐরাধা বই ॥ ওহে বুন্দে গুরু মহাশয়, যে বিদ্যা করাচ্ছে সার, অবিদ্যার আশায় আশায়,সকল বিদ্যা জলসই ৷ আর সকল জেতের হাতে খড়ি, আমার জেতের হাতে বাড়ি, বেড়াইতাম ব্রজের বাড়ী বাড়ী, চুরি করে খেতাম দই। আমি চিনি না কলমের খৎ, শিখায়েছ নাকে খং, লিখয়েছ দাসখং দিয়েছি তায় ঢেরা-সই। ம்_து ভৈরবী—একতাল।। এখন চিনবে কেন চিন্তামণি। হয়েছ রাজা, পেয়েছ কুজা, আমি বৃন্দাবনের সেই বৃন্দা কাঙ্গালিনী। যখন ছিল রাধার চিন্তে, তখন আমায় চিস্তে, বসেছ নাম কিস্তে, পারবে না হে চিন্তে, কুঞ্জবিহার বনে, এ মধুর ভুবনে, অস্তে দিও রাঙ্গী চরণদুখানি ॥ রাধার পায়ে ধরা, ধরাতে অধরা, চক্ষে শত ধারা, বক্ষে শত ধারা, দীনের অধীন করে এলে কমলিনী ॥ ििवप्ने-ष्ठि७f । এই কি তোমার কুবুজ, এই কি তোমায় কু বুঝায়। দেখ দেখি রই পক্ষে, আর স্বপক্ষে তার কে বুঝায়। একি দুৰ্দ্দৈবের নিৰ্ব্বন্ধ, যেমন ছাগপালে বাঘ অন্ধ, ঐগোবিন্দ হে ; যেমন আজন্ম অন্ধেরে অন্ধ বুঝায় ॥ قسمتحسان= সিন্ধু—একতাল।। মিছে কেন আর, গাথ কার তরে হার, যে পরিবে হার, সেই অদৃষ্ট।