পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/৪৫৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


৩৬৪ অড়র্থেস্ট । আমি আজ মালঞ্চেতে যাই । যতনে গাথিব মালা, ফুল যদি পাই ॥ চির বিরহিণী নারী, চিরদিন দুঃখে মরি, এ জ্বালা কিসে নিবারি, দুঃখের দোসর নাই। শয়নে শয্য-কণ্টকী, মনোদুঃখে ঝুরে অঁখি, সব শৃঙ্গময় দেখি, যে দিকেতে চাই ॥ க আড়খেমটা । যাওয়া ভার হয়েছে আমার কুসুম-কাননে। মন-আগুনে জ্বলে মরি বাচিনে প্রাণে ॥ আর কি আমার সে বল আছে, মুচুড়ে কলি ভেঙ্গে গেছে ! মালঞ্চ সব বন হয়েছে,—মালী বিহনে ॥ ঝিল্মিট-আড়খেমৃ*।। কে করেছে এমন সৰ্ব্বনাশ, হলো অরাজকে বাস অঁাটকুড়ীর ছেলেদের জ্বালায়, জলি বারোমাস ॥ ডাল ভেঙ্গেছে ফুল তুলেছে, পাতাfছড়ে ডাট। সার করেছে, পাপড়ি গুলো মুচড়ে দেছে, যার যে অভিলাষ । পবজ -এ ক তাল । ভাঙ্গা বাগান ধোগান দেওয়া ভার। ফুলে নাই বাহার। কেউ গেছে কুড়িতে মুচড়ে, কেউ হয়েছে লোটাসার ॥ ড কে না কেউ আদর ক'রে, যদি বেচি ধারে ধেরে, পয়সা দিতে ঝগড়া করে, যচলে নেয় না পুনৰ্ব্বার ॥ ভোলে না খোদ্দেরের মন, অযতনে করি যতন, কেউ বা নরম কেউ বা গরম, পাচ রকমের মন পাচ জনার ॥ অড়খেম্ট। আমরি কি হেরি নয়নে, এসে কুমুম কাননে । কন্দৰ্প কি শরৎশশী, জ্ঞান হয় মনে ॥ হেরে উহার চন্দ্ৰবদন, অঙ্গেতে না রহে বসন, বাঙ্গালীর গান । সচঞ্চল চিত-নয়ন, কেন কে জানে। চলে যেতে চরণ টলে, আবেশেতে পড়ি ঢলে, ইচ্ছা হয় ফুলসাজি ফেলে, বিকাই চরণে ॥ খেমৃট1। একল বসে কে বকুলতলায়। বুঝি মন-চোর চাদ-অভিপ্রায় ॥ হবে কোন বিদেশী এ প্রণয়ের সন্ন্যাসী, আ মরে যাই কি মধুর হাসি,— উহার হাতে আছে প্রণয়-ফঁাসি, তুলে দিবে কার গলায়। আড়খেম্টা। কে বিদেশি, রূপের শশী, বসে আছে বকুল-মূলে অবলা কিনিতে পার অনায়াসে বিনি-মূলে। ও না গেছে অনুভবে, এতে কি গৌরব রবে, কত নারী কুল হারাবে, আজকে সরোবরের কুলে s=ణాతాతాERE খাম্বাজ—আtড়ণেমূটা । বিদেশি তুমি কে, এ বয়সে, এমন বেশে কি জন্তে বিরাগী কি অনুরাগী, আছ কোন সন্ধানে ॥ তোমার মায়ের কেমন প্রাণ, বুক বেঁধে হয়েছে পাষাণ, ছেড়ে দিয়ে প্রাণের প্রাণ, বেঁচে আছে কোন প্রাণে ॥ থাস্বাজ–একতাল। । নাগর, কে তুমি হে বিদেশি। কোন রমণীর মন-চোরা ধন, মুখে মৃদু মধুর হাসি। রূপেতে নয়ন গেছে রে ভুলে, মনের আগুণ আমার উঠলো জ্বলে, কি জানি কোন ছলে, বকুলের মূলে, কার গলে দিবে প্রেমের ফঁাসি ॥ ধাস্বজ—আড়খেম্টা। আমার যে আশাতে আসা, খুলে বলি যদি পূরে আশ ।