পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/৫০০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


8め* একপেশে, দোপেশে,তেপেশের তো নাই কথন । মুরুবী যার আছে পোক্ত, স্কুল ত্যাগ করেই দাসত্ব, মুরুরী হীন কঁঠাল আমসত্ব,মরেনআহারবিহীনে ধূৰ্তী চাদর, নইকে আদর, কাটা পোষাক ঘর ঘর, সামনে গোট, পেছুন ছটা মাথার চুলের টেণ্ড ভাব। পথে চলে ট’লে টলে ফুঠপথে হয় পদ্মলাভ। পুলিশ পাহারাওয়ালার ঝোল, হয় বাবুদের চতুৰ্দ্দেলি, মধ্যে মধ্যে ডাণ্ডার ঠেলা,এই সুকৰ্ম্মের দক্ষিণে ॥ ইংরাজী পড়ে পাত দুচার, ধরাট। দেখেন সরার আকার, মদ গৰ্ব্ব অহঙ্কার, জীবে ভাবেন তৃণবং । দেখলে অভীষ্ট, হন রুষ্ট, করেনাকে দণ্ডবৎ। কেবল বুঝেন আপ্ত মুখ, পর দুঃখে নাহি দুখ, হেরেন না জননীর মুখ, শয্যাগুরুর বারণে ॥ আর নাই আর্যদের কাল, এখন কার ইংরাজী চাল, মহামান্ত মদমাতাল, বাবু বল্পে হয় গাল । স্তার,স্কোয়ার না বলে পর আমি বরেন চক্ষু লাল। খেজেন না আর চট ঠেটী, চাই ভেড়াট ঘোড়াটি, ঘরে মজুত মদের ভাটি, খুচরা খরচ কে কেনে ॥ ( বলেন) ইয়ং বেঙ্গল সভ্য ভবা, সাবেক হিন্দু সব অসভ্য,পড়েন কাশী রামদাস। এলে, বি এ, এম, এ, এর সাত জন্মে করে না পাশ । লেখা পড়া যকৃ গোল্লায়, যদি ডিনার পার্টতে যায়, তথাচ শরী.ে বল পায়, তবে দশ জন ইংরাজ চেণ্ডে ॥ ঐ যে রামায়ণ ভাগবত,সুপথ থেকে নেযায় কুপথ, হায় কি বিশ্ৰী মত, ক'রে গেছেন বেদব্যাস । এর মাইকেল মধু , দীনবন্ধুর, বুঝে নীকে র্যাঙ্ক ভার্স। খগ কহে একি বিপদ, ধৰ্ম্ম কৰ্ম্ম হলো রদ, গোডিমৃ ফুঠেই খেজেন মদ, যান সদ্য শমনভবনে ॥ | বাঙ্গালীর গান । সিন্ধুখাম্বাজ—একতাল।। আপন দোষে, যাচ্চে টেসে ভারতী । (প্রতে ) বুরো লুসে যায় আপিসে, দাসত্বের এই দুৰ্গতি ॥ প্রাতঃকুত্য সমাপ্ত হলে, আহার হয় মধ্যাহ্ন কালে, থাকে সুস্থ শরীর শাস্ত্রে বলে, আর্য্যের ছিল এই নীতি ॥ ইউরোপে সায়ং প্রাতে, বরফ জল থাকে পথে, { হয় দশটা পচটায় আফিস সাৰ্বতে শীতল দেশের এই রীতি ॥ ভারতবাসীর পুৰ্ব্বাপরে, প্রাতে বিষয় কৰ্ম্ম সেরে, মধ্যাহ্নে আহারের পরে, বিশ্রাম করার পদ্ধতি ॥ রাত্রের আহার হয় না জীর্ণ, প্রাতে উঠে ভুঞ্জে অন্ন, পেট আঁটে অতি জঘন্ত, পাক যন্ত্র হয় বিকৃতি ॥ কেহ এটে প্যানটুলন কোট, বলে দশটা বাজ বে ত্বরায় ছোট, হাজিরে বইয়ে করবে নোট, অ্যাব-সেণ্টট সম্প্রতি ॥ দাসত্ব করা কি অধৰ্ম্ম হয় না দেহের ধৰ্ম্ম কৰ্ম্ম, জানতে গেলে শ্বেতচৰ্ম্ম, ধনঞ্জয় দেয় বিলাতি ॥ দৈবে একদিন কামাই হলে, ড্যাম রাস্কেল কুলি বলে, বেগে বেগে বাহু তুলে,ঘুসিয়ে ভেঙ্গে দেয় ছাতি। ইংরেজ লোকের আফিসে ভাই, মলিন বসন পরবার যো নাই, কোট প্যান্‌টুলন বুট পায়ে চাই, চলে না সাদা ধুতি ॥ হোটেলেতে খান খান, বেরিয়ে পড়ে সে সব দেন, পুঁজির মধ্যে গাড়ী খান, লণ্ঠনের টোটা বাতি ॥ বেতন অল্প আর নাই উপায়, পোষাকে সৰ্ব্বস্ব যায়, দেনার জালায় ভুগতে হয়, কাদে সস্তান সন্ততি ॥