পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/৫০৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


9 צ8 অধলা অবলার এই কি ধরম, নাহি শম দম, প্রেম ভ্রম টানে ॥ কুলের কুলধতী, তোমরা সব সতী, এক ফেলে গৃহে এলে প্রাণপতি, হইবে অখ্যাতি, যাবে জাতি পতি, এমন কুরীতি কেনে। যাও যাও ধiও গৃহেতে ফিরি, রাখ রাখ রাখ বচন আমারি, ক্রমে ক্রমে হয় ঘোর বিভাবরী, শ্ৰীহরি কর এক্ষণে ॥ করিয়ে মিনতি খগপতি কয়, বাণীতে উদাসী হয় গোপীচয়, সে রবে যমুনা উজানে বয়, মুগ্ধ পশু পক্ষিগণে । যে শুনেছে বঁাশীর মধুর তান, সে কি ভয় কভু করে কুল মান, কন্দৰ্পে মোহিত করে তার প্রাণ, শুন ভগবান নিবেদি চরণে ॥ পিলু খাম্বাজ-পোস্ত। বঁাশীর গানে এনে বনে, এখন কেন হও কেন হও হে নিদয় দয়াময় জগতে কয়, সেই দয়ার কি এই পরিচয়, ত্যজি কুল শীল লাজ, গৃহকাৰ্য্য সমুদয়, নিশিতে কাননে পশি, কালশণী করিনে ভয় । তব লাগি বন্ধরাজ, ত্যজিয়ে গৃহ ঐশ্বৰ্য্য, বন কষ্ট করি সহ এ কার্যা উচিত নয়। শয্যা হইতে গোপিকা, পতিরে ফেলিয়ে এক, পাব বলে তব দেখা, এসেছি হে প্রেমময় । তোমার নিষ্ঠুর বাণী, অশনি প্রায় কর্ণে শুনি, রাখতে পাপ পরাণী তিল মাত্র ইচ্ছ। নাই ॥ শরচ্চত্রে কৃষ্ণচন্দ্র এসেছেন গোপিকাচয় কয় খগপতি গোপীর প্রতি শ্ৰীপতি হে হও সদয় খাম্বাজ–একতাল । মন প্রাণ দিয়ে প্রফুল্প হৃদয়ে হরি হরি বল বদনে । এ কলি কলুব, হুইবে নাশ, মধুর মধুর তনে৷ বাঙ্গালীর গান । বল উচ্চৈঃস্বরে, যতন করে কেশব মাধব যাদব শ্ৰীহরে, শ্ৰীপতি শ্ৰীধর শ্রীকৃষ্ণ কংশারে, ডাক শ্রীনন্দ-নন্দনে ॥ যেই নাম লাগি, সদাশিব যোগী, সৰ্ব্বস্ব ত্যাগী হলেন বৈরাগী, নামে অনুরাগী, জটাধারী যোগী, হরি হরি গুণগানে ॥ হরি নাম ব্রহ্মচারী যুগে বলে, নাম বলে জলে ভেসেছিল শিলে, পিতা পুত্রে ড.কি নারায়ণ ব’লে, গেল সে কৈবল্য ভবনে ॥ গজরাজ হ’য়ে বিপদে পতন, উচ্চেঃ ডাকে রক্ষ শ্ৰীমধুসুদন, কহে খগে, বেগে চক্র সুদর্শন, দুষ্টে নষ্ট করে প্রাণে ॥ ঝিঝিট খাম্বাজ আড়খেমটা । হেলায় হায় যায় বয়ে কাল । মন খুলে,ডাক ববম্ ব'লে, বজাইয়ে গাল ॥ বাল্যকাল ক্রীড়া বশে, প্রগণ্ডে প্রকাণ্ড রসে, যুবতে যুবতী বশে, বাৰ্দ্ধক্যে বেহাল ॥ সংসারে হয়ে আবৃত, ভুলেছরে নিত্য তত্ত্ব, ভজ শিব নিত্য নিত্য ল'য়ে যপমাল ॥ অধৈৰ্য্য জীব ধর ধৈর্য্য ত্যজ ঐশ্বৰ্য্য মাৎসৰ্য্য পাইবে রে মুখরাজ্য, কাট মায়াজাল ॥ করিলে হে দৃঢ়ভক্তি, শক্তি-পতি দিবেন মুক্তি শিব-তন্ত্রে এই যুক্তি, কহে খগপাল ॥ মিশ্র সিন্ধু—পোস্ত । কাটালি কাল, হয়ে নাকাল, ভাবিলি না সেকাল (জীব) দেখরে ভেবে, ছুদিন হবে, আজ মোলে তুই কাল ॥ বাল্যকাল ক্রীড়ায় মাতি, যুব কলেতে যুবতি বাৰ্দ্ধক্যে হ’লে হীন শক্তি, হবে কালাকাল । বৃথা কাজে কাল কাটে,মলি ভুতের বেগার খেটে চিত্রগুপ্ত হাতচিটে, গুণচে রে ত্রিকাল ॥