পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/৬২২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


(RWS) e সাহানা—টিমেভেতালা । অযোধ্যা নগরে আজু আনন্দ অপার। রাম রাজ্যেশ্বর হবে—শুভ সমাচার ॥ মধুর মঙ্গল-গীত, শুনি অতি মুললিত, মঙ্গল-বাজনা কত, বাজে অনিবার। পল্লব-কুসুম-হারে, কিবা শোভা দ্বারে দ্বারে, প্রতিশ্বরে সবে করে, মঙ্গল-আচার ॥ যোগিয়া-ভয় রো-কাওয়ালী । উঠ গা তোলে। ওহে নৃপমণি। দেখ, প্রভাত হুইল মুখ-যামিনী ৷ অযোধ্যার প্রভাকর, তুমি রাজা দণ্ডধর, প্রতাপে দ্বিতীয় দিনমণি। আসিয়া প্রকাশ প্রভা, উজ্জ্বল করহ সভা, সিংহাসনে বসিয়া আপনি ॥ নিরখিয়ে দিবাকর, তেজোহীন নিশাকর, নিশাচর ছাড়িল মেদিনী । তম পলাইল ত্ৰাসে,কুমুদিনী দুখে ভাসে, সরুসে হাসিছে কমলিনী ॥ তেমতি তব প্রভাবে, দুষ্ট জন দূরে যাবে, শিষ্ট্র জন হাসিবে এখনি । প্রভাতে মুরভি অতি, সমীর-মুধীর-গতি, তব যশ বহে অনুমানি ॥ বিহঙ্গ ললিত স্বরে, জগত উল্লাস করে, মুধ সম সেই কল-ধ্বনি । তেমতি তোমার ভাষা, শুনিতে করিছে আশা, কত রাজা কত ঋষি মুনি ॥ বিমল সরযু-জলে, স্নান হেতু কুতুহলে, চলে যত পুরুষ রমণী । তেমতি পবিত্র নদী, তব দয়া নিরবধি, झैँौन शेन झुथौ छन छानेि । আসিয়াছে আশা করি, পুরিয়াছে রাজপুরী, করিতেছে জয় জয় ধ্বনি ॥ துறக d & ৰিভাষ—আড়াঠেক1। উঠ উঠ মহারাজ, বারেক সন্তাষ কর। ঐমুখ মলিন তব, দেখিতে না পারি আর ॥ বাঙ্গালার গান । অকুল দুখ-পাথারে, ভাসাইয়ে অবলারে, পুত্র-শোক-পারাবারে, আপনি হইলে পার। কি করিব কোথা যাব। কোথা গে প্রাণ জুডাব, আর কার মুখ চাব, হেরি সব অন্ধকার । কেদার।—টিমেতেতালা । প্রণয়-বারিধি-মাঝে সুখ-নিধি যদি চাহ । এক জনে মন সঁপে তাহারি হক্টয়া রহ ॥ একাস্তে যে একে মজে, কভু না দ্বিতীয় ভজে, পবিত্র সুখ-সরোজে, বিরাজে সে অহরহ। নতুবা যে অনুরাগে, অংশ করে ভাগে ভাগে, বিরাগ তার ঘটে সোহাগে, যাতনা সহে দুঃসহ ॥ বেহাগড়া—খেম্টা। ভাঙা মন জোড়া দিতে, কার আছে আয় গো ছুটে । বারমেসে আড়া-আড়ি, এক নিমিষে যাবে টুটে। এপ্পি মোর গাছ-গাছড়া, ত্তেলপড়া আর জাড়ি জাড়া, সতীন হ’য়ে ভাতার ছাড়া, মরে বেটী মাথা কুটে । এ অমুদ মোর ছুতে ছুতে, হুড়কে বে যায় আপনি শুতে, বার-ফটকা পুরুষ যার, অঁাচল-ধরা হয়ে উঠে ॥ খাম্বাজ-একতাল।। সখি, প্রেম যে জেনেছে। পেয়েছে মুখ,ভুগেছে দুখ,স্বগে রসাতলে গেছে ৷ ' প্রণয়ু পবিত্র নিধি, অমৃতে গড়েছেন বিধি, বিরহ-বিপত্তি যদি না থাকিত পাছে পাছে ৷ যতনে পায় রতনে, প্রেম জন্মে অযতনে, কিন্তু যতনে এ ধনে, রাখে বা কার সাধ্য আছে । . কট জন্মে মধুর ফলে, মধুর প্রেমে ধারা গলে, আমি যেন তলে তলে, আমরা চির সঙ্গিনী, মিতান্ত তব অধিনী, অৰে কেন অনাথিনী করি গেলে প্ৰাণেশ্বর ॥ বিচ্ছেদ কীট সঙ্গ নিয়েছে।