পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/৮২৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


= రాకా বাঙ্গালাক্স সাল । த் ভাই তোরে করে কোলে, চলে যাই আমরা সকলে, ডাক্বে দুর্গ দুর্গ বলে, ক্ষুধা কি পিপাস হলে, আমাদের মা অন্নপূর্ণ অন্ন দেবেন দেশে বিদেশে। ক্ষুদ্রাতে প্রাণ ধায় গো মরি মরি। সহে না, সহে না ক্ষুধার যাতন, (চক্ষে আঁধার দেখি দাদা, আমি ম’লাম আত্র বাচিনে গো) খেতে দেও দেও পায়ে ধরি ॥ দাদা, বনে প্রাণ যায় পাছে, শাস্ত আয়ির কাছে | রেখে এস ত্বরা করি। অঙ্গ যে অবশ, গেল গো দিবস, ( সারা দিন উপবাসে, দাদ| খেতে কি আর দিবে না গো ) দেখ এলো বিভাবরী ॥ • দাদা এলে কি কাবুণে, এ ঘোর কাননে, সে সব পরিহরি । কি আছে অস্তরে, বল বসন্তরে, ( কিছুই যখন দিলে না গো) ( দাদা খেতে না দিয়ে মারিলে ) রাখ নয় দেও গলায় ছুরি। কোথা য’ব বসন্ত রে তোরে একা রেখে বনে । যদি যেতে হয় যা’ৰ আমি ভাই রে তোমার সনে, আমি তোড়ে ছেড়ে রই কেমনে। (তুই রে বিজয়ের নয়ন তারা, আমার বন্ধু বান্ধব তুই সব ) আমি বড় অনাথ, দুরাচার দেখেছি জগজ্জনে। ভাই কেন কেন ধরাসনে, ( ও কি অভিমান হ’য়েছে তোর ) (চাদ কি ভূমে পড়লে শোভা পায় ) ভাই উঠে কোলে, দাদা বলে, একবার ডাক রে চাদ বদনে । ও ভাই একবার উঠে দেখ নয়নে, (তোর সেই হতভাগ্য দাদার দশা, হায় রে ফলে কি ফল হ’ল এই ) নয় তোরে দিয়ে দুর্গা বলে ঝাপ দিব জীবনে ॥ | হৃদয় ছাড়া করবো না আর আয় রে হৃদয়ে রাখি। (ঠেকে খুব শেখা শিখেছি রে ভাই ) এই পিঞ্জর মাত্র ছিল, কিন্তু পিঞ্জরে ছিল না পাখি । এই হৃদৃ-পিঞ্জরে রাখি তোরে, (মধুর দাদা-বুলি বল বসন্ত ) আর দিতে পারবে না ফাকি ; ( ক্ষুধায় মলেম ফল দেও বলে ) আর দিতে পারবেন। ফাকি। ক্ষণেক বিলম্ব হ’লে, এখন ত যেতেম জলে, ভাই কোথা বলে ; : যদি দিলে সে বিধ, হৃদয়ের নিধি, (যে ধন বনমাঝে হারিখেছিলাম ) হৃদে গেঁথে নিশ্চিস্ত থাকি, ( আমি আর পলকে ফেলব না রে ভাই ) হৃদে গেথে নিশ্চিন্ত থাকি ৷ f একবার উঠে আয় বসন্ত তোর দুরাত্মা পিতার কোলে । ( যখন বন্ধন-দশায় কোলে উঠতে এলি ) আমি ফেলে দিয়েছি রে তোরে দূরুহ দুৰ্ব্বত্ত বলে একবার পিতা বলে ডাকু, জীবন জুড়াকৃ, ( আমি অনেক দিন শুনি নাই বাপ ) তো’র জল দেরে এই শোকানলে। দ্ৰৌপদীর বস্ত্রহরণ। যাওয়া যুক্তিযুক্ত নয়। হে রাজন, বারণ করি হে বিনয়, যখন সে সভাতে আছে শকুনি সুবল-তনয়। পাশায় তারে পরাভব, করা অতি অসম্ভব, অমৃতে গরল-উদ্ভব, হ’বে আমার মনে লয়। দুৰ্য্যোধন অতি অম্ভাজন,কুজন তার সব সভাজন, জানত রাজন, খেলাতে এই হয় অনুমান, . তোমারে করবে অপমান, জ্ঞাতিবাক্য বিষ সমান, শেষে বিচ্ছেদ হ’বে প্রণয় ॥