পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/৮৩৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করার কোনো প্রয়োজন নেই।


নীলকণ্ঠ মুখোপাধ্যায়


মায়ের মত দয়া করি আছে জগতে,
দুঃখের দুঃখী হয়রে, সুখী নহে তাতে;
ছায়ার মত থাকি কাছে কাছে,
পালন করে অতি যতনে ॥
 ব্ৰহ্মময় পিতা, ব্রহ্মময়ী মাকে,
ব্ৰহ্মজ্ঞানে যে জন সদা জপে,
নিব মায়ের কাছে মাতৃভক্তি শিখে,
সে দিন হবে কণ্ঠের কত দিনে ॥

--

(হরি) কদিন রব ভব সংসারে।
লক্ষযোনি ভ্রমণ করে পাই না তোমারে।।
আসি যাই আর ঘুরি ফিরি,
তোমার দেখা পাই না হরি,
একদিন দেখি জননী জঠরে ;–
ভূমিষ্ঠ হয়ে যে, কৃষ্ণ পাই না তোমারে।
আসা যাওয়া বিফল হ’ল,
দিনে দিনে দিন ফুরাল,
শমন এসে বধিবে শৃঙ্খলে,—
তুমি যদি কর কৃপা, তবে যাই ভবপারে।
নীলকণ্ঠ কয় শোক-সাগরে,
আর কতদিন ভাসবো নীরে,অকূল পাথারে ;–
তুমি দাও হে চরণতরি লওহে দাসে পার করে।।

--

জগতে সুখের চেয়ে দুঃখ বরং ভাল ;
দুঃখী ধারা এ সংসারে নিত্য সুখ তাদের অন্তরে
তাদের হদে সদা বিহরে, শান্তি পরিমল ৷।
ধনী যারা তাদের মনে, মুখ নাই তিল-পরিমাণে,
সদা ধন অন্বেষণে, তারা বিহ্বল ৷।
ধনের লাগি ধনীর মন, করে কুপথ অন্বেষণ,
স্ত্রীহত্যা ব্ৰহ্মহত্যা, পাপ করে সকল।।
কাঙ্গাল যারা তারা ধন্য, ধাৰ্ম্মিক বলে তাঁর গণ্য,
তাদের রয়না পাপ চিন্তা, অন্য মতি নিৰ্ম্মল ।
ভিক্ষা করি দ্বারে দ্বারে, বেলা দ্বিতীয় প্রহরে,
গোবিদ হে ধর বলে, খায় অন্ন জল ।
নীলকণ্ঠ সদা ভাবে, অর্থ চিন্ত কবে যাবে,
ভিক্ষায় জীবন কাটিবে মম চিরকাল।।

--

 বল হরবোল। মনের বেদনা রবে না, রবে না,
যাবেরে যাবে সকল গোল ॥
হরিনামের কি কহিব গুণ,
গুণের লাগি হরি নির্গুণ,
নির্গুণে গুণ দেন সে স্বগুণ,
 গুণাগুণ তার বলরে কেবল ।।
হরি হরি বল রবে মা সন্তাপ,
পাবে না পাবে না কোন মনস্তাপ,
যাবে না যাবে না সে কৃতান্ত পাশ,
তাইতে বলি নামে হওরে বিভোল।
হরিতে অসাধ্য ব্যাধি, হরিবোল মহাঔষধি,
ছেদিতে মায়াপাশ, হরি হন অস্ত্রাদি,
তড়িতে কাল ভয়,হন কাল বাদি,
নির্ধনের সম্বল সে নীলকমল ৷

--

 আপন আপন করা জীবের পাগলামি কেবল ,
একবার দেখনা বুঝে, চক্ষু মুদে,
কৰ্ত্তা সাজা কিবা ফল ॥
বল দেখি ভাই ছিলাম কোথা,
ইহার পর যাব কোথা, কে মাতা পিতা,
হব কার জামাতা, কার বা পিতা,
বিশেষ কথা আমায় বল।
চরণে চরণ ছন্দ, নয়ন থাকতে হব অন্ধ,
আগে হবে নাসিকা বন্ধ, কৰ্ত্তা সেই জগদানন্দ,
সকলই তার কৌশল ।।
কোথা রবে তোর জুড়ি গাড়ী,
কোথা রবে চেন ঘড়ি ও জমিদারী, নীলকণ্ঠ কয় সে নিদানকালে,
মুখে দেবে বিন্দু গঙ্গাজল ।।

--

 হরিবল মন রসনা জনম বয়ে গেল রে ।
হরিবল বন্ধু সবে, মানব দেহ কাঞ্চন হবে,
বললে প্রেমের উদয় হবে, ভব পারে যাবিরে।।
বাল্যকালে বাল্য খেলা, যুবাকালে প্রেমের লীলা,
 বৃদ্ধকালে হরি বলা, শমনে ঘেরিল রে।
বেলা গেল সন্ধ্যা হ’ল মুখে হরি হরি বল, যাবার সময় বয়ে গেল, আবার কখন বলবি রে ।