পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/৮৪৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রসিকচষ্ণচক্ৰষ্ঠিী ও মন ভক্তিভেনে বলে কি কুকু বাবার। শণীকণ্ঠ কল্প ওরে পাগল মন, : দুঃখে ভক্তির উদয়, তুষ্ট জনাৰ্দ্দন, দুধে মগ্ন হ’লে, ডাকিলে দীনবন্ধু বলে, চারে নয়ন মিলে ভবের কাণ্ডারী ॥ রসিকলাল চক্রবর্তী। যশোহর জেলার (থাণী কালীগঞ্জ ) রায়-গ্রামে ২৬৩ সালে ইহঁর জন্ম হয়। পিতার নাম রামরত্ব ক্রবর্তী। ১২৯৪ সালের চৈত্র মাসে মাতৃ-বিরোগর পর, কয়েকটা বালক লইয়া, ইনি নিজ রচিত দ্বিগুণগান করিতে থাকেন। ইহাই পরে বালক蒿 যাত্রায় পরিণত হয়। এই বালক-সঙ্গীতের }ত্রই আদর হইয়াছিল। টোড়ি-যোগিয়া-মিশ্র-কাওয়ালী। হরিনাম-মুধারস নে রসনে । বে না যাতনা, যাবে ভবভয় ভাব মন পীতবসনে হও ষড়রিপুরত হরিপদ সেবনে। হরূিপান্নাম্বুজ ভ্রাণ, নাসিক কর আঘ্ৰাণ, & মত্ত হও শ্রবণ হরিগুণ শ্রবণে । * ব্ৰহ্মময় ব্রহ্মরূপ, যেরূপ বিশ্বরূপ স্বরূপ, ইও নিয়ত রত নয়ন সেইরূপ দরশনে ॥ হরি পদরজ মাখ অঙ্গে অঙ্গে যতনে। কর ধর কর-মালা, জপ হরি যাবে জ্বালা, বিপদ যাবে, চল পদ বৃন্দাবনে, হলে ভক্তিরসে মুরসিক, পাবি রে দীন রসিক, হরিকে মানসে হৃদি পদ্মাসনে ॥ } বিভাস-কাওয়ালী। নীলকমল বামে সোণার কমল ফুটেছে রে । কিংবা নীলগিরি বামে চাদ উঠেছেরে ॥ ং নবম্বন পাশে, স্থির সৌদামিনী হাসে, পুৱাতে বক্তার আশে যুগল ফুটেছে রে । "ওরূপ হৃদয়ে বার, ডৰে কি জানতা, ওরূপ দেখে পাইতে . . . . . :ে }; ላ¢ ጫ সে যে ভক্তির অধীন রে নাম ভক্তাধীন, পতিত-পাবন দীন দয়াময় ॥ " (অনাথের নাথ) অক্তি ডোরে ধ্রুব প্রহ্লাদ শুক, বেঁধে কৃষ্ণধনে হৃষ্ট মনে পায় অনন্ত মুখ, আর বেঁধেছে নারদ ঋষি রে, দিবানিশি কৃষ্ণপ্রেমের নাহি ক্ষয় ॥ ( বেঁধেছে তায় ) আর বেঁধেছে সনক-সনাতন, সদানয়নমুদে দেখছে হদে ব্রহ্মসনাতন, আর বেঁধেছে সদাশিব রে, नश् िअभिव शूडूछघ्नो भूटूअम्ल ॥ ( বেঁধে তারে) আর বেঁধেছে দৈত্যরাজ বলি, হয়ে তার দ্বারে দ্বারী, আছেন হুরি, জানে সকলি, আর বঁধে যশোমতী নন্দ রে। তাই গোবিন্দ নন্দের বাধা মাথায় বয় ॥ (না বাধলে কি ) কৰ্ম্ম দোষে হারিয়ে ভক্তিডোর, ভবে রসিক ভাবে, নিশি দিবে, হেরে বিপদ ঘোর, তারে বাধবে কিসে রে, পায় না দিশে যা করেন সেই কৃপাময় ॥ নিজগুণে ॥ দেখরে জ্ঞানচক্ষু মেলে। সে কি কালীদহে ডুবার ছেলে। বিশ্বময়ই শুনি তারে বিশ্বময় সবাই বলে, ও মন আছে পঞ্চভূতে ব্যাপ্ত কৃষ্ণ, ' অনলে কি জলে স্থলে। . ঐ দেখ, কৃষ্ণকাস্তি-আভা নীলময় নভোমণ্ডলে, (ও মন) ঐ দেখ, কৃষ্ণরূপের প্রভা, নিস্তার রসিক ছুটেছে রে । পড়ে ক্ষেত্র মাঝে দূৰ্ব্বাদলে। নবন্ধন শ্বামের বর্ণ, দেখরে ঐ নীয়দে জলে, ও মন ঐ দেখ, গ্লামের গুমিল- , বর্ণ ধরে বৃক্ষপত্র ছলে । অস্তরে আছেন কুরু, চেয়ে দেখ হৃদকমলে, ও মন সেবে অন্তর বহির, , দেখে তার জলে রসিক নম্ন-জন্তু!