পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/৮৮২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ᏄᎼ o তুমি স্বরধুনী স্থর-তরঙ্গিণী, কুলু কুলু রবে কহ কি কাহিনী, কহ গো আমার গৌড়-বিলাসিনী, কোথা পলাইল সে গেীর রায়। বনতরু তোরা দেখেছিস্ ৰ্তাহার, দেখেছিস্ রে যবে প্রেমের লীলায়, নয়নে তরঙ্গ, করেতে করঙ্গ, সোণার সে অঙ্গ লুঠিত ধূলায় ॥ দেখেছিলি যদি বলরে এখন, কোথা চলে গেল কাঙ্গালের সে ধন, নদিয়া রয়েছে, নদিয়া-বিহারী ফিরিবে কি আর এই নদিয়ায় । যে নগরে কোটি কণ্ঠে হরিধ্বনি, শুনি উথলিত আনন্দে অবনী, সেই ত নদিয়া রয়েছে পড়িয়া, শূন্ত-দেহ-সম নাহি প্রাণ তায় । আলাইয়া-সোহিনী-ৰtহার-—এক তল । প্রেমের দায় শেষে এসে নদিয়ায়, fক নূতন খেলা খেল্পে প্রেমময় । রাধী রাধা বলে ভাস অশ্রুঞ্জলে, (আবার) হাস অশ্রুমাঝে একি ভাবোদয় ॥ ৰে অঙ্গে শোভিত প্রেমের পীতবাস, সে অঙ্গে কেীপীন, কিবা রসাভাস, বঁশরীর করে করঙ্গ বিহরে, মাধুরীর ভঙ্গি তায় পরিচয়। মোহন চুড়া ছিল মদন-মোহন, সে চুড়ায় চারু জটার বন্ধন, সে বিনোদ ঘট, বিলসিত ছট, সোণার বরণে ঢাকিবার নয় ॥ লুকায়েছ বলে বুঝেত না লোকে, পাছে পাছে ধায় আধার আলোকে, ধরা পড় তুমি ধারাময় চোখে, প্রেমামৃত সিন্ধু কিসে ঢাকা রয়। কি যেন তোমার কোথা ছিল হয়, কি যেন হারায়ে পাগলের প্রায়, সে ধন গ্রাণের মাঝে গোপনে বিরাজে, প্রকাশে না লাজে হেন মনে লয় ॥ বাঙ্গালীর গান ) আলাইয়া-মোহিনী-বাহার-একতাল।। জয় রাধে—বল, মন সাধে জীব, সাধনায় যদি থাকে তোর মন । রাধার ভাব বিনা, হয় না আরাধন খ সে ভাবের তত্ত্ব আত্ম-নিবেদন ॥ হৃদয়ে নিরথি নব-বন-শুম, সদানন্দময় রূপ অভিরাম,— ভুলিবি সংসার, বাধুনি মায়ার, শ্ৰীপদে সপিবি যুগল নয়ন। প্রাণের মাঝারে প্রেম-বৃন্দাবনে, নিরমল-চিত্ত-নিকুঞ্জ-কাননে, নিরস্তর হেরি, সে রূপ মাধুরী, জুড়াবি রে জ্বালা, জুড়াবি জীবন ॥ কামনা-কালিন্দী-কুলেতে কখন, কলুষকালীয় করিলে গর্জন, । চরণে শরণ লইয়ে তখন, করাইবি তার ফণার দলন। মধু হতে হবি মধুর জীবনে, মধুধারা ঢালি নিখিল ভুবনে, হরি হরি মুরি, আপনা পাসরি, পরকে করিবি প্রেমেতে আপন ॥ মনোহয়সাহী জংলী—লোভা । হরি বলে হায় কেরে দেখ, ঐ চলে যায়। রূপের—অতুল আভায় যেন, বিজলী লাজে লুকায় ॥ কষিত-কাঞ্চন-তরু—তমু মনোহর,— কুসুমে শিশির সম আঁখি ঝর ঝর, আঁখির-পলকে পলকে যেন, ভ্রমর উড়ে বেড়ায়। এ নব বয়সে কে রে যোগীর এবেশে, ক্ষণে ক্ষণে র্কাপে অঙ্গ কি দুঃখ-আবেশে, আহ!—কি যাতনায় প্রণে জ্বলে, চলেছে দেখ, রে কোথায়। কে এরে সন্ন্যাসীর বেশে মরি সাজাইল, দও কমণ্ডলু আই করে তুলে দিল, ওরে-কেউ কি নাই রে ত্রিসংসারে, কেন কাজলের প্রায়।