পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/৯৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


अtभeणांश । পিলু বাহার-জং ভবের আসা, খেলব পাশ, বড়ই আশা মনে ছিল। মিছে আসা ভাঙ্গ দশ প্রথমে পাঞ্জুরি পলে। প'বার আঠার ষোল যুগে যুগে এলেম ভাল। শেষে কচে-বার পেয়ে মাগো পাজা-ছক্কায় বদ্ধ হলো ॥ ছ'দুই আট, ছ’চার দশ, কেহ নয় মা আমার বশ । আমার খেলতে না হলো যশ, এবার বাজী ভোর হইল। এবার বাজি ভোর হলো মন কি খেল খেলাবে বল ॥ শতরঞ্চ প্রধান পঞ্চ, পঞ্চে আমায় দাগ দিল । এবার বড়ের বর করে ভর, মন্ত্রীটী বিপকে মলো। দুটা অশ্ব দুটা গজ, ঘরে বসে কাল কাটালো, তারা চলতে পারে সকল ঘরে তবে কেন অচল হ’লে | দুখন তরী, নিমক ভরি, বাদাম তুলি না চলিল ওরে এমন মুবাতাস পেয়ে, ঘাটের তরী ঘটে রলো। ঐীরামপ্রসাদ বলে, মোর কপালে এই কি ছিল ? ওরে অতঃপরে কোণের ঘরে, পীলের কিস্তে মাত হইল। বিভাস—ঝ"পতাল । তাই বলি মন জেগে থাক, পাছে আছে রে কাল চোর। কালী নামের অসি ধর, তারা নামের ঢল, ওরে সাধ্য কি শমনে তোরে করতে পারে জোর কালী নামে নহবং বাজে, করি মহা সোর। ওরে শ্ৰীদুৰ্গা বলিয়া রে রঞ্জনী কর ভোর ॥ কালী যদি না তরাবে, কলি মহাম্বোর। কত মহাপাপী অর গেল, রামপ্রসাদ কি চোর ? মন করে না মুখের আশ । যদি’অভয়-পদে লবে বাস ॥ হোয়ে ধৰ্ম্ম-তনয় ত্যজে আলয়, বনে গমন হেরে পাশ । হোয়ে দেবের দেব সদ্বিবেচক, র্তেই তো শিবের দৈন্ত দশ৷ সে যে দুঃখী দাসে দয়া বাসে, মন সুখের আশে বড় কসা। হরিষে বিষাদ আছে মন, করে না এ কথায়ু গোস ॥ ওরে মুখেই দুখ দুখেই মুখ, ডাকের কথা আছে ভাষা। মন ভেবেছ কপট ভক্তি, কবে পূরাইবে আশা। কবে কড়ার কড়া তন্ত কড়া, এড়াবে না রতি মাসা । প্রসাদের মন হও যদি মন, কৰ্ম্মে কেন হওরে চাষ । ওরে মনের মতন কর যতন, রতন পাবে অতি খাস ॥ কে জানে গো কালী কেমন। ষড়দর্শনে না পায় দরশন। কালী পদ্মবনে, হংস সনে, হংসীরূপে করে রমণ । র্তাকে সহস্রারে মুলধরে, সদা যোগী করে মনন | আত্মারামের আত্মা কালী, প্রমাণ প্রণবের মতন। তিনি ঘটে ঘটে বিরাজ করেন, ইচ্ছাময়ীর ইচ্ছ। যেমন। মায়ের উদর ব্রহ্মাও ভাও, প্রকাও তা জান কেমন । মহাকাল জেনেছেন কালীর মৰ্ম্ম, অন্ত কেবা জানে তেমন ॥ প্রসাদ ভাষে লোকে হাসে,সন্তরণে সিন্ধু গমন। আমার প্রাণ বুঝেছে, মন বুঝে না, ধরবে শণী হয়ে বামন ॥