পাতা:বিরাটপর্ব্ব (হরিনাথ ন্যায়রত্ন).pdf/৩৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

বিরাটপৰ্ব্ব । چs\ আমার যত ক্লেশ হইতেছে তাহ কি আপনি জানেন না ? অামার আর বাচিয়া ফল কি বলুন দেখি । বিরাটের শ্যালক দুৰ্ম্মতি কীচক প্রতিদিন অtমার নিকট আসিয়া আমাকে সৈরিন্ধ দেখিয়া আমার ভাৰ্য্যা হও বলিয়া কত্তই ৰিরক্ত করে । o : অপিনকার জ্যেষ্ঠের গুণের কথাই বা কি কহিব, আমাদিগের যাবতীয় দুঃখই কেবল উহার হুর্মুদ্ধিনিবন্ধনই বলিতে হইবে । পাশ ক্রীড়ায় রাজ্যাদি অপৰ্ম্মশরীর পর্ষ্যস্ত হরিয়া প্রত্ৰজ্যাশ্রম অবলম্বন কর, তিনি ভিন্ন আর কে কোথা করিয়াছে ? নিষ্কসহস্র পণ করিয়া নিরন্তর পাশক্রীড়া করিলেও র্যাহার বসন ভূষণ করা রগ রথদি সম্পত্তি অসস্থ্যবর্ষেও ক্ষয় প্রাপ্ত হয় না, সেই রাজা যুধিষ্ঠির এক্ষণে সামান্য মূঢ়ের ন্যায় স্বকৃত দুগ্ধৰ্ম্মের ফলভোগ করিতেছেন । ভাবিয়া দেখুন দেখি, দশ সহস্ৰ করিৰর যে নৃপবরের সর্বদা অনুগমন করিভ, এক্ষণে র্তাহাকে দু্যত্তজীবী হইয়। জীবমযtফ্লা নিৰ্ব্বtহু করিম্ভে হইল । ইহা অপেক্ষ দুঃখের বিষয় অণর কি আছে ? ইন্দ্রপ্রস্থে শত সহস্ৰ মহীপাল যে নরেন্দ্রগ্রেষ্ঠের প্রসাদ লাভের প্রত্যাশায় দ্বারদেশে দণ্ডায়মান থাকিস্ত, র্যাহার পাকশালtয় সহস্র সহস্ৰ পাচিক ও পরিচারিক পাষ্ট্ৰীহস্ত হইয়া রাত্রি দিব অতিথিসেবায় ব্যস্ত থাকিস্ত, যিনি দীন দরিদ্রদিগকে অজস্র দ্রবির্ণদান করিকেন, সুমুষ্ট মণিকুণ্ডলধারী সুস্বর সম্পন্ন কত শত ঝুপ্ত মাগধগণ সায়ং ও প্রাভঃকালে ধা হয়ে উপাসনা করিঙ, শপ্ত সহস্ৰ ঋষিগণ র্যাহার নিভ্য সভাসদ থাকিতেন, যিনি অষ্টাণীতি সহস্ৰ স্নাতক