প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:বিষাদ-সিন্ধু এজিদ্‌-বধ পর্ব.pdf/১০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


t এজি-বধ পৰ্ব্ব । গণ্য-মান্ত, ধনী, সাধারণ প্রজার মনের ভাব বিশেষ করিয়া অতি গোপনে কৌশলে পরীক্ষণ করিতে হইবে। কেবল ধনভাণ্ডার খুলিয়া দেখিয়াই চক্ষু শীতল করিলে চলিবে না। আহাৰ্য্য সামগ্ৰী—কেবল মানুষের নয়। গরু, ঘোড ইত্যাদি পালিত জীব জন্তুসহ নগরস্থ প্রাণীমাত্রের—কত দিনের আহ্বার মজুত, ‘প্রাণীর পবিমাণ, আহাৰ্য্যসামগ্ৰীৰ পবিমাণ, আনুমানীক যুদ্ধকালের পরিমাণ করিয়া সমুদয় সাব্যস্ত, বন্দোবস্ত, আমদানী, রপ্তানী, পানীয় জলের সুবিধা পৰ্য্যস্ত করিয়া—তবে অন্ত কথা । এযুদ্ধে একথাটা অগ্ৰেই ভাবা উচিত ছিল। মহাবীব মাহাম্মদ খুনিফ বহুদূর হইতে আক্রমণ অাশয়ে আসিয়াছেন। ভিন্ন দেশ, তাহাৰ পক্ষে সহস। প্রবেশেই দুঃসাধ্য। द्देशन পর নগর আক্রমণেব আশা । রাজ-বন্দীগুহ, হইতে পবিজনগণকে উদ্ধাবেব অtশ1–এজিদকে বধ কবিয়া দামস্ক সিংহাসন অধিকার কবিবাব আশী- এক একটা আশা কম পরিমাণেব আশা নহে । কথাছলে আমি ইহাকে এক প্রকার দুবাশাও বলিতে পাবি , কাবণ রাজ্যের সীমাই যুদ্ধের সীমা । সে সীমা অতিক্রম কবিয়া নগরের প্রান্তভাগেব প্রাস্তবে এজিদের কাল স্বয়ং আসিয়া উপস্থিত। এক গাজীবছমানের বুদ্ধিকৌশলে সকল বিষয়ে মুন্দব বন্দোবস্ত। যাহ। তাহাদের পক্ষে কঠিন ছিল, তাহাও তাহাব অনায়াসেই সিদ্ধ কৰিবাছে। রাজ্যসীমাব প্রবেশ দূরে থাকুক, নগবের প্রাস্তসীমায় রণভূমি—মার আশ। কি । অষ্টায় সমবে রাজা স্বয়ং যুদ্ধক্ষেত্রে । কি পবিতাপ ! যে রাজা রাজনীতির বাধ্য নহে, সমবৰ্নীতির অধীন নহুে, স্বেচ্ছাচারী তাই যাহার মস্তিষ্কের ধল, তাহার কি আর মঙ্গল আছে ? প্রণয়, প্রেমে যে রাজী আশক্ত, তাহার কি আর ঐ বুদ্ধি আছে ? যুদ্ধবিগ্রহে পিবীত প্রণয়ের প্রসঙ্গই আসিতে পারে না । মূল কাবণ হওয়া দূরে থাকুক, সে নামেই সৰ্ব্বনাশ ! রাজনীতি, সমরনীতি, এই দুইটা নীতির অভ্যস্তরে প্রবেশ কৰিয়া যত জ্ঞানলাভ হইবে, যত বিষয়ে অভিজ্ঞতা জন্মিৰে, ততই বুঝিতে পারা যাইবে, যে ইহার মধ্যে কিনা আছে । জগতের সমুদায় ভাব, স্বভাব, ব্যবহার, কাৰ্য্য-প্রণালী সমুদয় ঐ দুই নীতির মধ্যগত , কিন্তু ব্যবহারের ক্ষুমতা, চালনার বল কাৰ্য্যে পরিণত করিার মধিকার, সম্পূর্ণরূপে জগতে কোন প্রাণীর মস্তর্কে আছে কিনা সন্দেহ।